জঙ্গি অর্থায়নরোধে অগ্রগতির খসড়া প্রতিবেদন এফএটিএফে জমা দিয়েছে পাকিস্তান

প্রকাশ: ২০ আগস্ট ২০২০   

অনলাইন ডেস্ক

জঙ্গি অর্থায়ন রোধে গৃহিত পদক্ষেপের অগ্রগতির প্রাথমিক খসড়া প্রতিবেদন আন্তর্জাতিক সংস্থা ফিন্যান্সিয়াল অ্যাকশন টাস্ক ফোর্সে (এফএটিএফ) জমা দিয়েছে পাকিস্তান। 

আগামী সেপ্টেম্বরে অনুষ্ঠেয় এফএটিএ’র বৈঠকে পুনর্মূল্যায়নের আশায় এ প্রতিবেদন জমা দিয়েছে ‘ধূসর’ তালিকায় থাকা দেশটি। মঙ্গলবার পাকিস্তানের গণমাধ্যম দ্য নিউজ ইন্টারন্যাশনালে বলা হয়েছে, শিল্পমন্ত্রী হাম্মাদ আজহার আশা করছেন, শিগগিরই পাকিস্তান পুনর্মূল্যায়িত হবে। খবর টাইমস অব ইন্ডিয়া ও জাস্টআর্থ নিউজের।

ফিন্যান্সিয়াল অ্যাকশন টাস্ক ফোর্স (এফএটিএফ) হলো একটি আন্তর্জাতিক সংগঠন, যারা জঙ্গি অর্থায়ন ও অর্থ পাচারের বিষয় পর্যবেক্ষণ করে থাকে। যেসব দেশ সন্ত্রাসবাদ ও অর্থ পাচার রোধে কোনও ভূমিকা নেয় না, তাদের স্থান হয় কালো তালিকায়। আর যারা যথাযথ পদক্ষেপ নিতে পারেনি, তারা ধূসর তালিকায় স্থান পায়। 

জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ না নেওয়ার অভিযোগে ২০১২ সালে প্রথমবার এফএটিএফের কালো তালিকাভুক্ত হয় পাকিস্তান। পরবর্তীতে এ নিয়ে সামান্য উন্নতি করায় ২০১৮ সালের জুনে দেশটিকে ‘ধূসর তালিকা’য় রাখা হয়। প্রথমে কালো ও পরে ধূসর তালিকাভুক্তির ফলে পাকিস্তানে বৈদেশিক বিনিয়োগ ও ঋণ বাধাগ্রস্ত হওয়ায় দেশটির অর্থনীতিতে মারাত্মক ধস তৈরি হয়। এরমধ্যে চলতি বছরের জুনে করোনার কারণে এফএটিএফের ভার্চুয়াল মূল্যায়ন বৈঠক হলেও তাতে মুক্তি মেলেনি পাকিস্তানের। 

পাকিস্তান সরকারের একটি সূত্র জানায়, এফএটিএফের পক্ষ থেকে পাকিস্তানকে এ নিয়ে ২৭ টি শর্ত পূরণ করতে দেওয়া হয়েছিল। এতোদিনে পাকিস্তান ১৪টি শর্ত পূরণ করতে পারলেও ১৩টি বাকি ছিল। সেই ১৩ শর্ত পূরণের প্রতিবেদন জমা দেওয়া হয়েছে এফএটিএফের কাছে। গত ৬ আগস্ট পাকিস্তানের পক্ষ থেকে প্রাথমিক খসড়া প্রতিবেদন জমা দেওয়া হয়। 

পাকিস্তান সরকারের উর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা বলেন, আগামী ১৪-২১ সেপ্টেম্বর ফের বৈঠকে বসছে এফএটিএফ। ওই বৈঠকে যাতে পুনর্মূল্যায়িত হওয়া যায়, সেই চেষ্টা চালাচ্ছে পাকিস্তান। এফএটিএফ ইস্যুতে দায়িত্বপ্রাপ্ত পাকিস্তানের শিল্পমন্ত্রী হাম্মাদ আজহার এ বিষয়ে বলেন, কমপ্লায়েন্সের বাকি ১৩ পয়েন্টের মধ্যে ১১টি পাকিস্তান পুরোপুরি পূরণ করতে সক্ষম হয়েছে। আশা করা হচ্ছে, এ ব্যাপারে ইসলামাবাদ পুনর্মূল্যায়িত হবে।