যুক্তরাষ্ট্রের উপকূলীয় স্টেট লুইজিয়ানা ও টেক্সাসে আঘাত হেনেছে প্রবল শক্তিশালী হারিকেন লরা। বৃহস্পতিবার ভোরে ক্যাটেগরি চার মাত্রার সামুদ্রিক ঝড়টি আছড়ে পড়ে। ঝড়ের তাণ্ডবে দুই রাজ্যের সীমান্ত এলাকায় আকস্মিক বন্যা দেখা দিয়েছে। এলাকার অন্তত ৫ লাখ মানুষ বিদ্যুৎবিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছেন। খবর বিবিসি ও ওয়াশিংটন পোস্টের 

যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল হারিকেন সেন্টার (এনএইচসি) জানিয়েছে, লুইজিয়ানার ক্যামেরন শহেরে আছড়ে পড়ার সময় হারিকেন লরার বাতাসের গতিবেগ ছিল প্রতি ঘণ্টায় ১৫০ মাইল। এটাই যুক্তরাষ্ট্রে চলতি বছরে আঘাত হানা সবচেয়ে শক্তিশালী ঝড়। ঝড়টি ক্রমেই অভ্যন্তরভাগের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। 

ইতোমধ্যেই হারিকেন লরার প্রভাবে লুইজিয়ানায় বন্যা দেখা দিয়েছে। প্রাণ বাঁচাতে টেক্সাস-লুইজিয়ানার অন্তত পাঁচ লাখ মানুষকে ঘর ছেড়ে নিরাপদ আশ্রয়ে যেতে বলা হয়েছে। ঝড়ের প্রভাবে উপসাগরীয় উপকূলটিতে ১৫ থেকে ২০ ফুট উচ্চতার জলোচ্ছ্বাস হতে পারে বলে সতর্ক করেছে এনএইচসি।

সংবাদমাধ্যমসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রকাশিত ছবি ও ভিডিও ফুটেজে দেখা যায়, প্রবল বৃষ্টিতে সৃষ্ট বন্যায় উপকূলীয় এলাকার আশপাশের রাস্তাঘাট ইতোমধ্যেই তলিয়ে গেছে। বিদ্যুৎ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন হয়ে অন্ধকারে কাটাচ্ছে পুরো এলাকা। 

এনএইচসি জানিয়েছে, ঝড়ের আঘাতে লুইজিয়ানায় অন্তত ৩ লাখ ৭০ হাজার মানুষ বিদ্যুৎবিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছেন। অন্যদিকে টেক্সাসে ৮৫ হাজারের বেশি পরিবার অন্ধকারে রয়েছে। 

মাত্র ৭২ ঘণ্টাও হয়নি যুক্তরাষ্ট্রের এ উপকূলটিতে তাণ্ডব চালিয়ে গেছে আরেক সামুদ্রিক ঝড় মার্কো। ঝড়টির আঘাতে ক্যারিবিয়ান অঞ্চলে অন্তত ২৪ জনের মৃত্যু হয়েছে।

লুইজিয়ানার গভর্নর জন বেল এডওয়ার্ড বলেন, রাজ্যের লেকসিটি শার্লস থেকে এরইমধ্যে বন্যা কবলিত ৭৮ হাজার পরিবারকে নিরাপদে সরে যেতে বলা হয়েছে। ন্যাশনাল গার্ডকে উদ্ধার অভিযানে নামানো হয়েছে। টেক্সাস গভর্নর গ্রেগ অ্যাবট বলেন, এলাকার ৪ লাখের বেশি মানুষকে নিরাপদ আশ্রয়ে যেতে বলা হয়েছে।