ধর্ষকদের ফাঁসি দেওয়ার কথা বলে সমালোচনার মুখে ইমরান খান

প্রকাশ: ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২০   

অনলাইন ডেস্ক

ইমরান খান

ইমরান খান

ধর্ষকদের শাস্তি হিসেবে প্রকাশ্যে ফাঁসি দেওয়া বা রাসায়নিক প্রয়োগে নপুংসক করে দেওয়া উচিৎ বলে জানিয়েছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। সম্প্রতি দেশটিতে একটি ধর্ষণের ঘটনায় আলোড়ন তৈরি হওয়ায় এমন মত দিয়েছেন পাক প্রধানমন্ত্রী। তবে তার এ মত নিয়ে অনেকেই সমালোচনা করেছেন। 

তারা বলছেন, ক্ষুব্ধ জনতার আবেগের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের স্রোতে গা ভাসিয়ে দেওয়া উচিৎ নয়।

সোমবার এক টিভি চ্যানেলকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ইমরান খান বলেন, ধর্ষকদের দৃষ্টান্তমূলক সাজা দেওয়া উচিত। আমার মত হলো, তাদের প্রকাশ্যে ফাঁসি দেওয়া। ধর্ষক ও শিশু নিপীড়কদের জন্য এই শাস্তির বিধান থাকা দরকার।

ইমরান খান বলেন, ‘দুঃখের বিষয় হলো, আপনি-আমি এই বিষয়ে (জনসমক্ষে হত্যা) আলোচনা করলেও আন্তর্জাতিকভাবে তা গ্রহণযোগ্য হবে না। বরং ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে জি-প্লাস বাণিজ্য সুবিধা পাওয়া পাকিস্তান ক্ষতিগ্রস্ত হবে।’

আরেকটি বিকল্পের কথা তুলে ধরেন তিনি বলেন, অপরাধের মাত্রা অনুসারে ধর্ষকদের রাসায়নিক প্রয়োগ বা অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে নপুংসক করা যায়। বিভিন্ন দেশে এই শাস্তি প্রচলিত আছে।

তার এ মন্তব্য নিয়ে অনেকেই সমালোচনা করছেন। তারা বলছেন, ধর্ষণের শাস্তি হিসেবে ফাঁসি কোন সমাধান নয়। 

দ্য ডন বলছে, ক্ষুব্ধ জনতার আবেগের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের স্রোতে গা ভাসিয়ে দেওয়া উচিৎ নয়। ধর্ষণের মত অপরাধ মোকাবিলায় ইমরান খানকে পদ্ধতিগত পরিবর্তনের পরামর্শ দেওয়া উচিত। আরও বেশি কার্যকর পদক্ষেপের ব্যবস্থা করা উচিত। 

ডন বলছে, একটি দেশের নেতা হিসেবে ধর্ষণের ক্ষেত্রে এই ধরনের শাস্তির পক্ষে যাওয়ার আগে তার দ্বিগুণ সচেতন হওয়া উচিত।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার লাহোর থেকে দুই সন্তানকে নিয়ে গুজরানওয়ালা যাওয়ার পথে ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। ভোরের দিকে রাস্তায় গাড়ি খারাপ হয়ে গেলে ওই নারী সাহায্যের জন্য তার স্বামীকে ফোন দিয়ে ঘটনাস্থলে অপেক্ষা করতে থাকেন। কিন্তু স্বামী এসে পৌঁছানোর আগেই ওখানে উপস্থিত হয় একদল যুবক। তারা নারীটিকে তার সন্তানদের সামনে যৌন নির্যাতন করে এবং তার কাছে থাকা টাকাপয়সাসহ অন্যান্য মালপত্র ছিনিয়ে নেয়। পরে পুলিশ স্বামীর অভিযোগে ১৫ জনকে গ্রেপ্তার করেছে।