কাবুলে রকেট হামলায় নিহত ৮

প্রকাশ: ২১ নভেম্বর ২০২০   

অনলাইন ডেস্ক

সংগৃহীত ছবি

সংগৃহীত ছবি

আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলের আবাসিক এলাকায় বেশ কয়েকটি রকেট হামলায় কমপক্ষে আটজন নিহত এবং ৩১ জন আহত হয়েছেন। শনিবার সকালে রাজধানীর কূটনৈতিক এলাকার কাছে এ হামলা হয়।

হামলার পরপরই বিভিন্ন দূতাবাসে সাইরেন বেজে ওঠে। এ ঘটনায় তালেবানকে দায়ী করছে কাবুল সরকার। খবর রয়টার্স ও এএফপির।

দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র তারিক আরিয়ান জানান, রকেট হামলায় নিহত আটজনই বেসামরিক নাগরিক। এ হামলার জন্য তালেবানকে দায়ী করে তিনি বলেন, সন্ত্রাসীরা একটি ছোট ট্রাকে করে ১৪টি রকেট নিয়ে আসে এবং ট্রাক থেকেই সেগুলো আবাসিক এলাকার দিকে ছোড়ে। সেখানে মোট ২৩টি রকেট হামলা চালিয়েছে তারা। কীভাবে তারা এতগুলো রকেট নিয়ে নগরীতে প্রবেশ করল তা খুঁজে বের করতে তদন্ত শুরু হয়েছে।

অন্যদিকে কূটনৈতিক এলাকার মধ্যে একটি রকেট নিক্ষেপ করা হয়েছে, সেটি বিস্ফোরিত হয়নি। এ ছাড়া একটি হাসপাতালেও রকেট হামলা হয়েছে। সানা মেডিকেল নামের ওই হাসপাতালের নার্স মরিয়াম রহিমি জানান, সেখানে একটি রকেট আঘাত হানে।

আফগানিস্তানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা জানান, হামলার পর ঘটনাস্থল থেকে পাঁচটি লাশ এবং আহত ২১ জনকে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এসব নিশ্চিত করে কাবুল পুলিশের মুখপাত্র ফেরদৌস ফারামারজ জানান, এ ঘটনায় নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে।

কাবুলের ওই কূটনৈতিক এলাকায় রকেট হামলার ঘটনায় সরকারি বক্তব্য প্রত্যাখ্যান করেছে তালেবান। তারা জানিয়েছে, জনসমাগম এলাকায় অন্ধভাবে কখনও হামলা চালায় না সংগঠনটি।

হামলার সময়ের বেশ কিছু ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়েছে। এতে রকেটের আঘাতে ক্ষতিগ্রস্ত গাড়ি, ভেঙে পড়া জানালা ও আবাসিক ভবনের দেয়ালে বড় গর্ত দেখা যায়। এসব ছবির মধ্যে ভাইরাল হওয়া একটি ছবিতে ছোট দুই ভাইবোনকে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখা যায়। কর্মকর্তারা জানান, ওই দুই ভাইবোন নিজ বাড়িতেই রকেটের আঘাতে নিহত হয়েছে।

ইরানের দূতাবাস এক টুইটবার্তায় জানিয়েছে, তাদের দূতাবাসের খুব কাছে একটি রকেট আঘাত হানে। এটার ধাতব অংশ দূতাবাসের মূল ভবনের দেয়ালে আঘাত করেছে। তবে ওই ঘটনায় দূতাবাসের কেউ হতাহত হননি।