রাশিয়ার সাবেক সব প্রেসিডেন্ট ও তাদের পরিবারকে আজীবন দায়মুক্তি দিয়ে উত্থাপিত বিল দেশটির পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ ডুমায় পাস হয়েছে। গত মঙ্গলবার বিলটি পাস হওয়ার পর এতে স্বাক্ষর করেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। এখন এটি পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষ ফেডারেল কাউন্সিলে তোলা হবে। এরপর আনুষ্ঠানিকতা শেষে প্রেসিডেন্ট হিসেবে পুতিনের স্বাক্ষরের পরই বিলটি আইনে পরিণত হবে। খবর আলজাজিরার।

চলতি বছরের শুরুর দিকে রাশিয়ার রাজনৈতিক পদ্ধতির সংস্কারের অংশ হিসেবে প্রেসিডেন্টের দায়মুক্তি-সংক্রান্ত নতুন এই আইন প্রণয়নের উদ্যোগ নেন ভ্লাদিমির পুতিন। সম্প্রতি তোলা বিলে সাবেক প্রেসিডেন্ট এবং তাদের পরিবারের সদস্যদের যে কোনো অপরাধের আজীবন দায়মুক্তি দেওয়া হয়েছে। ফলে তাদের কোনো অপরাধে বিচারের মুখোমুখি, তদন্ত, গ্রেপ্তার, জিজ্ঞাসাবাদ এবং তাদের ব্যাপারে কোনো ধরনের অনুসন্ধান করা যাবে না। আগের আইনে শুধু প্রেসিডেন্টদের দায়িত্বে থাকার সময়ে দায়মুক্তি ছিল। বাকি সময়ে তাদের কৃতকর্মের জন্য জবাবদিহির সুযোগ ছিল। নতুন বিলে এসব কোনোকিছুর সুযোগ থাকছে না।

অন্যদিকে, বিলটি আবার রাশিয়ার সংবিধান সংশোধনীর অংশবিশেষ হিসেবে গণ্য হচ্ছে। কারণ, এই গ্রীষ্মে সংশোধিত সংবিধান সারাদেশে ভোটের মাধ্যমে অনুমোদিত হয়েছে। ইতোমধ্যে সেই ভোটে ৬৮ বছর বয়সী প্রেসিডেন্ট পুতিনের ২০৩৬ সাল পর্যন্ত দেশটির ক্ষমতায় থাকার পথ নিশ্চিত হয়েছে। তবে এটা তিনি স্বেচ্ছায় না চাইলে তাকে ২০২৪ সালে পদত্যাগ করতে হবে। মঙ্গলবার দেশটির আইন বিভাগের সূত্র জানিয়েছে, নতুন বিলে সাবেক প্রেসিডেন্টরা এবং তাদের পরিবারগুলো জীবদ্দশায় যে কোনো রকম অপরাধ করুন না কেন, তাদের সারাজীবনের জন্য দায়মুক্তি দেওয়া হয়েছে। পুতিন নিজেকেসহ সাবেক প্রেসিডেন্টদের সুযোগ করে দিলেন আজীবনের দায়মুক্তির। এখন তারা রাষ্ট্রদ্রোহ বা এর মতো ভয়াবহ অন্য কোনো অপরাধ সুপ্রিম অ্যান্ড কনস্টিটিউশনাল কোর্টে নিশ্চিত হলেও আইন তাদের স্পর্শ করতে পারবে না। তারা এখন আইন ও সংবিধানের ঊর্ধ্বে।

এখন নতুন নিয়মের কারণে সাবেক প্রেসিডেন্টরা ফেডারেশন কাউন্সিল বা সিনেটে আজীবন আসন পাবেন। এই অবস্থানের কারণে প্রেসিডেন্ট পদ ছেড়ে গেলেও তারা বিচারের হাত থেকে রক্ষা পাবেন। ডুমায় তোলার পর গত মাসে স্থগিত হয় এই বিল। তখন দীর্ঘদিনের প্রেসিডেন্ট পুতিন তার শারীরিক কারণে পদত্যাগের পরিকল্পনা করছেন বলে গুজব ছড়িয়ে পড়ে। তবে সে সময়ে এ কথা উড়িয়ে দেয় ক্রেমলিন।

প্রেসিডেন্টদের দায়মুক্তির বিল মঙ্গলবার ডুমায় পাস হওয়ার একদিন পর বিরোধীদলীয় নেতা অ্যালেক্সি নাভালনি টেলিফোনে গুরুতর এক অভিযোগ করেন। তিনি বলেন, গত আগস্টে তাকে বিষ প্রয়োগে হত্যার চেষ্টাকারী গুপ্তচর এজেন্টের ফোন নম্বর উদ্ধার করা হয়েছে। পরে ওই গুপ্তচরের পরিচয় ও ফোন প্রকাশ করা হয়েছে, যা সম্প্রতি নতুন প্রস্তাবিত আইন অনুযায়ী অবৈধ।