করোনাভাইরাসের নতুন ধরন আরও প্রাণঘাতী হতে পারে বলে জানিয়েছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। প্রাথমিক যে প্রমাণ পাওয়া গেছে, তার ভিত্তিতে এ সতর্কবার্তা দিয়েছেন ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ পার্টির নেতা।

তবে করোনার এ ধরনে আক্রান্ত ও মৃত্যু সংখ্যার মধ্যে এখনও ব্যাপক অনিশ্চয়তা রয়েছে। এছাড়া টিকাগুলো এ ধরনের ভাইরাসের ক্ষেত্রেও কাজ করবে বলে আশা করা হচ্ছে। খবর বিবিসির

গণিতবিদরা এ ভাইরাসের মূল ও নতুন ধরনের আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে মৃত্যু হারের তুলনা করে কিছু প্রাথমিক তথ্য পেয়েছেন। তার ভিত্তিতেই এ কথা বলেছেন বরিস জনসন।

বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, ভাইরাসের নতুন ধরনটি ইতোমধ্যে যুক্তরাজ্যজুড়ে ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়েছে। এছাড়া বিশ্বের আরও কয়েকটি দেশে এই ধরন শনাক্ত করা হয়েছে বলে সংবাদমাধ্যমগুলো আগেই জানিয়েছিল।

ডাউনিং স্ট্রিট থেকে সংবাদ সম্মেলনে বরিস জনসন বলেন, ভাইরাসের এই নতুন ধরন দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। পাশাপাশি এটি একটি বৈকল্পিক ধরন হিসেবেও প্রাথমিক তথ্য পাওয়া গেছে। যা মৃত্যুর উচ্চ হারের কারণ হয়েও দাঁড়াতে পারে। এটি প্রথম শনাক্ত হয়েছিল লন্ডন এবং দেশের দক্ষিণ-পূর্বে।

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বলেন, এই নতুন বৈকল্পিক ভাইরাসের প্রভাব বিশাল হতে পারে। অর্থাৎ জাতীয় স্বাস্থ্যসেবা (এনএইচএস) বিভাগকে চাপে ফেলে দিতে পারে।

জনস্বাস্থ্য ইংল্যান্ড, ইম্পেরিয়াল কলেজ লন্ডন, লন্ডন স্কুল অব হাইজিন অ্যান্ড ট্রপিকাল মেডিসিন এবং ইউনিভার্সিটি অব এক্সেটর প্রত্যেকে ভাইরাসের এই নতুন ধরনটি কতটা প্রাণঘাতী, তা নির্ধারণ করার চেষ্টা করছে।

প্রাথমিকভাবে পাওয়া তথ্যগুলো নতুন এবং জরুরি শ্বাসযন্ত্রের ভাইরাস হুমকি পরামর্শদাতা দলের বিজ্ঞানীরাও মূল্যায়ন করেছেন। দলটি বলেছে, ‘বাস্তববাদী আশঙ্কা’ আছে ভাইরাসের নতুন ধরনটি আরও প্রাণঘাতী হতে পারে। তবে এটি এখনও নিশ্চিত নয়।

একইসঙ্গে ব্রিটিশ সরকারের প্রধান বৈজ্ঞানিক উপদেষ্টা স্যার প্যাট্রিক ভ্যালেন্সও এসব তথ্য ‘এখনও শক্তিশালী না’ হিসেবে বর্ণনা করেছেন।