ভারতের মধ্যপ্রদেশে কংগ্রেসের কৃষি আইনবিরোধী মিছিল ঘিরে ব্যাপক সংঘর্ষ হয়েছে। কৃষকদের সমর্থনে কংগ্রেসের মিছিলে পুলিশ জলকামান, কাঁদানে গ্যাস ও লাঠিচার্চ করেছে। এ সময় আহত হয়েছেন বহু কংগ্রেস সমর্থক। শান্তিপূর্ণ মিছিলে পুলিশের এমন আচরণের নিন্দা জানিয়েছে কংগ্রেস। এ ছাড়া ধস্তাধস্তিতে বেশ কয়েকজন পুলিশ সদস্যও আহত হয়েছে বলে জানা গেছে।

এদিকে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির মা হীরাবেন মোদির কাছে সাহায্য চেয়ে খোলা চিঠি লিখেছেন পাঞ্জাবের কৃষক হারপ্রিত সিং। খবর এনডিটিভির।

বিতর্কিত কৃষি আইনের বিরোধিতায় এবং আন্দোলনকারী কৃষকদের সমর্থনে মধ্যপ্রদেশে দুই সপ্তাহব্যাপী প্রতিবাদ কর্মসূচির ঘোষণা করেছে কংগ্রেস। শনিবার সেই মতো রাজধানী ভোপালে হাজার হাজার সমর্থকদের নিয়ে মিছিলে নামেন কংগ্রেস নেতারা। তাতে নেতৃত্ব দেন রাজ্যের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী কমলনাথ।

শনিবার স্থানীয় সময় সকালে প্রথমে জওহর চকে কংগ্রেস সমর্থকরা জড়ো হন। সেখান থেকে তাদের রাজ্যপাল আনন্দিবেন প্যাটেলের বাসভবন ঘেরাও করে বিতর্কিত আইন তিনটি প্রত্যাহারের দাবি জানানোর কথা ছিল। তবে রাজভবনে যাওয়ার অভিমুখে মিছিল আটকে দেয় পুলিশ। ফিরে না গেলে বল প্রয়োগ করা হবে বলে হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়। কিন্তু কংগ্রেস সদস্যরা তাতে দমে যাওয়ার পরিবর্তে ব্যারিকেড ঠেলে সামনে এগোনোর চেষ্টা করেন। এ সময় কংগ্রেস সমর্থকদের ওপর জলকামান নিক্ষেপ করে পুলিশ। মিছিল ছত্রভঙ্গ করতে কাঁদানে গ্যাসও ছোড়া হয় তাদের লক্ষ্য করে। সেই সঙ্গে শুরু হয় এলোপাতাড়ি লাঠিচার্জ।

সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত ছবিতে দেখা গেছে, প্ল্যাকার্ড এবং পতাকা হাতে পুলিশের মার থেকে বাঁচতে এদিক-ওদিক ছুটে বেড়াচ্ছেন কংগ্রেস সমর্থকরা। পুলিশের এই আচরণের তীব্র নিন্দা জানিয়েছে কংগ্রেস। স্থানীয় প্রশাসনের অনুমতি নিয়েই তারা মিছিল বের করেছিলেন বলে দাবি করেন।

এদিকে মোদির মায়ের কাছে খোলা চিঠি দিয়েছেন হারপ্রিত। শুক্রবার টাইমস অব ইন্ডিয়াকে হারপ্রিত বলেন, কৃষি সংস্কারের নামে গত বছর সেপ্টেম্বরে মোদি সরকার তিনটি কৃষি আইন পাস করেছে। আমি প্রধানমন্ত্রীর মাকে চিঠি লিখে অনুরোধ করেছি- যেন তিনি ছেলেকে ওই তিনটি আইন বাতিল করতে বলেন। কেউ তার মায়ের অনুরোধ ফেলতে পারে না।