প্রাণঘাতী করোনার প্রকোপ কমে আসায় ভারতের বিভিন্ন রাজ্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলতে শুরু করেছে। তবে এর মধ্যে কেরালায় স্কুল খোলার পর দুটি সরকারি স্কুলের ২৫০ জনেরও বেশি শিক্ষার্থী ও শিক্ষক করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এ পরিস্থিতিতে স্কুল দু’টি বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। খবর ইন্ডিয়া টুডে ও দ্য হিন্দুর।

ভারতের দক্ষিণাঞ্চলের রাজ্য কেরালায় কয়েক দিন আগেই দশম থেকে দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের জন্য স্কুল খুলে দেওয়া হয়। এরপরই রাজ্যের মালাপ্পারাম জেলার পাশাপাশি দুটি স্কুলের দশম শ্রেণির ১৮৯ জন শিক্ষার্থী করোনায় আক্রান্ত হয়। একই সঙ্গে স্কুলের ৭০ জন শিক্ষক ও কর্মীও আক্রান্ত হয়েছেন করোনায়।

মালাপ্পারামের এক স্বাস্থ্য কর্মকর্তা জানিয়েছেন, গত রোববার জেলার মারানচেরিতে একটি সরকারি স্কুলের ১৫০ শিক্ষার্থী ও ৩৪ জন শিক্ষক করোনার আক্রান্ত হয়েছেন। একজন শনাক্ত হওয়ার পরই সবার করোনা টেস্ট করানো হয়। এর পাশাপাশি পুন্নানি এলাকার ভ্যান্নেরি উচ্চবিদ্যালয়ের ৩৯ শিক্ষার্থী এবং ৩৬ শিক্ষক করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

এ দু’টি স্কুলের সব শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও স্কুলের কর্মকর্তা ও কর্মচারীর করোনা টেস্ট করা হয়। এতজন কীভাবে করোনায় আক্রান্ত হলেন বা কীভাবে করোনা সবার মধ্যে ছড়িয়ে পড়ল, তা খতিয়ে দেখছেন রাজ্যের স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তারা।

গত বছর জানুয়ারি মাসে কেরালাতেই ভারতের প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয়। এরপর দেশজুড়ে করোনা ছড়িয়ে পড়লে কেরালার করোনা মোকাবিলার ধরন সাড়া ফেলেছিল। সেই রাজ্যেই স্কুল খোলার পর এমন পরিস্থিতি হলো। বর্তমানে কেরালায় মোট আক্রান্ত প্রায় ১০ লাখ। রোববার কেরালায় আক্রান্ত হয়েছেন ৬ হাজার ৭৫ জন, মৃত্যু হয়েছে ১৯ জনের।

এদিকে করোনা আবহের মধ্য ১১ মাস বাদে আগামী ১২ ফেব্রুয়ারি স্কুল খুলছে পশ্চিমবঙ্গে। তবে স্কুল খুললেও একগুচ্ছ নির্দেশিকা প্রকাশ করছে রাজ্যগুলো। শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের বক্তব্য অনুযায়ী, নবম, দশম, একাদশ এবং দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত ক্লাস হবে। পশ্চিমবঙ্গের রাজ্য সরকার ৫২ পাতার বিস্তারিত গাইডলাইন প্রকাশ করেছে। সেখানে স্কুল খুললে কী করা যাবে আর কী করা যাবে না সেই সংক্রান্ত একগুচ্ছ নির্দেশিকা প্রকাশ করল ভারতের শিক্ষা অধিদফতর। স্কুলগুলির ক্ষেত্রেও কি কি বিষয়ে বাধ্যতামূলক সেগুলিও গাইডলাইনে বলে দেওয়া হয়েছে।