নাভালনিকে নিয়ে বিতর্কের জেরে এবার ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করার হুমকি দিয়েছে রাশিয়া। 

প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের ঘোরতর সমালোচক হিসেবে পরিচিত অ্যালেক্সেই নাভালনিকে ‘বিষপ্রয়োগে খুনের চেষ্টা’ এবং জার্মানি থেকে সুস্থ হয়ে রাশিয়ায় ফেরার পর তাকে গ্রেপ্তার করা নিয়ে পাশ্চাত্য দেশগুলোর প্রবল সমালোচনার মুখে পড়েছে রাশিয়া। এর পাল্টা হিসেবে রাশিয়ার ওপর আবারও নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার কথা ভাবছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন। তারই জেরে এ হুমকি দিল দেশটি। খবর ডয়চে ভেলের।

রাশিয়ার ওপর অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হলে তারা হাত গুটিয়ে বসে থাকবে না বলে সতর্ক করে দিয়েছেন রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরভ। মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, আমরা বিশ্ব থেকে স্বেচ্ছায় পৃথক হতে চাই না। কিন্তু পরিস্থিতি বিরূপ হলে আমরা সে জন্য তৈরি। শান্তি চাইলে যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত থাকতেই হবে।

নাভালনিকে নিয়ে বিভিন্ন টানাপোড়েনে আগে থেকেই সরব যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রিটেন। এরই মধ্যে রাশিয়া ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের তিনটি দেশ এক অপরের বেশ কয়েক জন কূটনীতিককে বহিষ্কার করেছে। নাভালনিসমর্থকদের বিক্ষোভে মদতের অভিযোগে জার্মানি, সুইডেন ও পোল্যান্ডের কূটনীতিককে গত সপ্তাহে  বহিষ্কার করেছে মস্কো। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে পাল্টা আঘাত আসে ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে। তার পরই রুশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ইউরোপীয় ইউনিয়ন ছাড়ার এ হুমকি।

রাশিয়ার একটি ইউটিউব চ্যানেলের সঙ্গে সেকথা স্বীকার করেন লাভরভ। তিনি বলেন, ‘ইইউর সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক সত্যিই ভাঙনের মুখে। তবে সম্পর্ক শেষ হলে দায়ী হবে ইউরোপীয় ইউনিয়নই।