২৪১ জন আরোহী নিয়ে মাঝ আকাশে ফ্লাইট, হঠাৎ বিস্ফোরণ, খুলে খুলে পড়তে লাগল যন্ত্রাংশ, যাত্রীরা ধরেই নিয়েছিলেন আর ফেরা হবে না, চিৎকার-চেঁচামেচি, কান্নাকাটি করে বিদায় নিয়েছেন অনেকে, সেই মৃত্যু মুখ থেকে সবাইকে নিরাপদে নামিয়ে এনেছে ইউনাইটেড এয়ারলাইন্সের একটি প্লেন।

যুক্তরাষ্ট্রের ডেনভার থেকে হাওয়াই যাচ্ছিল প্লেনটি। পথে বিস্ফোরণ। প্লেনের ভেতরের একটি ভিডিওতে দেখা গেছে, উড্ডয়নরত ‘বোয়িং ৭৭৭-২০০-’-এর ডান পাখায় আগুন জ্বলছে। বের হচ্ছে ধোঁয়া। এ অবস্থায়ই সবেগ ছুটে চলেছে প্লেনটি।

রুশ সংবাদমাধ্যম আরটির খবরে বলা হয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের ইউনাইটেড এয়ারলাইন্সের বোয়ি-৭৭৭ একটি প্লেন মাঝ আকাশে বড় ধরনের যান্ত্রিক ত্রুটিতে পড়েছিল। একটি ইঞ্জিন থেকে বিস্ফোরণ হয়। এরপর বেশ কয়েকটি যন্ত্রাংশ খুলে পড়ে যায়। ভাগ্যক্রমে প্লেনটি ডেনভার আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে জরুরি অবতরণ করতে সক্ষম হয়েছে।

শনিবার এ ঘটনা ঘটেছে। কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, এ ঘটনায় প্লেনটির কোনো আরোহীর কেউ হতাহত হননি। এছাড়া নিচে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে পড়া ধ্বংসস্তূপেও কেউ হতাহত হননি। ইউনাইটেডের প্লেনটিতে এ সময় যাত্রী ছিলেন ২৩১ জন। এছাড়া ১০ জন ছিলেন ক্রু।

ইউনাইটেডের ‘ফ্লাইট ৩২৮’ এ দুর্ঘটনায় পড়ে। ডেনভার থেকে হনোলুলুর উদ্দেশে উড্ডয়ন করার পরপরই ঘটনাটি। এছাড়া বলা হচ্ছে, জরুরি অবতরণের পর প্লেনটির একটি ইঞ্জিনের গুরুত্বপূর্ণ বেশ কয়েকটি যন্ত্রাংশের খোঁজ পাওয়া যায়নি।

বেশ কয়েকজন যাত্রী জ্বলন্ত ইঞ্জিনের ভিডিও ধারণ করেছেন। ভিডিওতেই আবার দেখা যায়, মুহূর্তের মধ্যেই প্লেনটি মাটি স্পর্শ করেছে নিরাপদে। একইসঙ্গে সবার স্বস্তি ও আনন্দিত হওয়াটাও ছিল ওই ভিডিওর অংশ।

এদিকে, একাধিক প্রত্যক্ষদর্শী জানিয়েছে, প্লেনটির দুর্ঘটনায় তারা হতবাক। মুহূর্তের মধ্যেই তারা এক পাশে আগুন দেখতে পান। সাবধান হচ্ছিলেন কখন প্লেনটি বিধ্বস্ত হয়। এরমধ্যেই বিকট শব্দে প্লেনের যন্ত্রাংশ খুলে পড়তে থাকে।

ইউনাইটেড এয়ারলাইন্স একটি বিবৃতিতে জানিয়েছে, ডেনভার থেকে ফ্লাইট ইউএ-৩২৮ হনোলুলু যাচ্ছিল। উড্ডয়নের কিছুক্ষণ পরই এর একটি ইঞ্জিন বিকল হয়ে যায়। তবে ফ্লাইটটি নিরাপদে ডেনভারে ফিরে জরুরি অবতরণ করতে সক্ষম হয়েছে।

বিষয় : প্লেন দুর্ঘটনা যুক্তরাষ্ট্র

মন্তব্য করুন