অ্যাজমা রোগের চিকিৎসায় ব্যবহৃত একটি সাধারণ ওষুধে করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের দ্রুত সুস্থ হয়ে ওঠার প্রমাণ পেয়েছেন যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা।

গবেষণাপত্রে বলা হয়েছে, উপসর্গ দেখা দেওয়ার সাত দিনের মধ্যে ইনহেলারের মাধ্যমে বুডিসোনাইড ওষুধ দিতে পারলে কভিড-১৯ আক্রান্তদের সুস্থ হওয়ার সময় যেমন কমে আসে, তেমনি হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার ঝুঁকিও কমে।

বুডিসোনাইড জেনেরিক নামের ওষুধটি করোনার ভ্যাকসিন তৈরি করা প্রতিষ্ঠান অ্যাস্ট্রাজেনেকার। পালমিকোর্ট নামে তারা এটি বিক্রি করে। ধূমপায়ীদের ফুসফুসের চিকিৎসায়ও এটি ব্যবহার করা হয়। ১৪৬ জন রোগীকে নিয়ে পরিচালিত হয়েছে এ গবেষণা। এতে দেখা গেছে, সাধারণ করোনা রোগীদের তুলনায় বুডিসোনাইড ব্যবহার করা রোগীদের হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার ঝুঁকি ৯০ শতাংশ কম।

চিকিৎসকরা লক্ষ্য করেছেন, শ্বাসকষ্টের চিকিৎসা নেওয়া রোগীরা করোনা আক্রান্ত হলেও হাসপাতালে কম যাচ্ছেন। তখন গবেষকরা ধারণা করেন, অ্যাজমা রোগের ওষুধের কারণে তাদের সমস্যা কম হয়ে থাকতে পারে। এরপর তারা গবেষণা শুরু করেন।

বিশ্লেষণের প্রাথমিক ডাটায় দেখা গেছে, বুডিসোনাইড ব্যবহার করা রোগীদের জ্বরও কম হয়। ওষুধটি পৃথিবীর অধিকাংশ অঞ্চলে পাওয়া যায়। করোনার দিনগুলোতে অনেক চিকিৎসক এটি রোগীদের ব্যবহার করতে বলেছেন।

বিষয় : করোনাভাইরাস করোনার চিকিৎসা

মন্তব্য করুন