পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচন নিয়ে উত্তপ্ত রাজনীতির মাঠ। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃণমূলের বিরুদ্ধে আক্রমণের অন্যতম ইস্যু নারী সুরক্ষা। এখানে নারীরা সুরক্ষিত নন, বারবার দাবি তুলেছে বিজেপি। গত রোববার ব্রিগেডের মঞ্চ থেকেও নারী সুরক্ষা নিয়ে তৃণমূলের বিরুদ্ধে সরব হয়েছিল বিজেপি নেতৃত্ব।

সোমবার নারী দিবসের মঞ্চে এ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী সে প্রসঙ্গ তুলে ধরেই বলেন, বাংলায় মেয়েরা সুরক্ষিত নয় বলা হচ্ছে। তাহলে কোথায় সুরক্ষিত। বাংলাতে এসে শুধু মিথ্যে কথাই বলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহর বিরুদ্ধেও একই অভিযোগ তোলেন মুখ্যমন্ত্রী।

গত শুক্রবার তৃণমূলের প্রার্থী তালিকা প্রকাশের দিনই মমতা জানিয়েছিলেন, ৮ মার্চ নারী দিবস উপলক্ষে রাস্তায় হাঁটবেন। পূর্বঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী কলেজ স্ট্রিট থেকে ডোরিনা ক্রসিং পর্যন্ত মিছিল করেন তিনি। প্রতিবছরই এ দিন মিছিল করেন তৃণমূল নেত্রী। 

তবে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ভোটের আগে এই মিছিল যথেষ্ট তাৎপর্যপূর্ণ। এ দিন কর্মসূচিতে মমতার সঙ্গে ছিলেন সদ্য তৃণমূলে প্রার্থিতা পাওয়া সায়নি, কৌশানী, সায়ন্তিকা, লাভলি থেকে শুরু সংসদ সদস্য মিমি-নুসরতসহ টালিগঞ্জের একঝাঁক তারকা।

নারী সুরক্ষা নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী আরও বলেন, বাংলায় মেয়েরা দিন-রাত সবসময় সুরক্ষিত। তারা চাকরি করে, সংসার করে, রাত ১০-১১টায় যেখানে খুশি যেতে পারে। বাংলার নারী সুরক্ষার সঙ্গে তুলনা টেনে গুজরাটের অপরাধের পরিসংখ্যান তুলে ধরেন মমতা। 

তিনি দাবি করেন, নারীদের ওপর অত্যাচারে এগিয়ে মোদির মডেল গুজরাট। ক্রাইম রেকর্ড বলছে, ধর্ষণের শীর্ষে আমেদাবাদ আর যোগী রাজ্য উত্তর প্রদেশ। এই পরিসংখ্যান নিয়ে আবার বড় বড় কথা। শিলিগুড়ির মতো এ দিনও গ্যাস ও পেট্রোপণ্যের মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে কেন্দ্রের বিজেপি সরকারকে আক্রমণ করেন মমতা। তিনি বলেন, বিনা পয়সায় আমরা চাল দিচ্ছি, ফোটাতে লাগছে ৯০০ টাকার গ্যাস। কিছু দরকার নেই, প্রধানমন্ত্রী বিনামূল্যে গ্যাস দিন।

প্রথম দফার ভোটের আগে ১৩ মার্চ থেকে জেলা সফর শুরু করবেন মমতা। অন্যদিকে ১২ মার্চ থেকে বিজেপিতে সদ্য যোগ দেওয়া মিঠুন চক্রবর্তীও রাজ্যে প্রচার শুরু করবেন বলে শোনা যাচ্ছে।

মমতার ছায়াসঙ্গীসহ বিজেপিতে একঝাঁপ বিধায়ক: টিকিট না পাওয়া বিধায়কদের দল এবার গেরুয়া শিবিরে। গতকাল বিজেপিতে যোগদান করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দীর্ঘদিনের ছায়াসঙ্গী সোনালী গুহ। তিনি সাতগাছিয়ার বিধায়ক। একই সঙ্গে যোগদান করেন শিবপুরের বিধায়ক জটু লাহিড়ী, সিঙ্গুরের মাস্টারমশাই রবীন্দ্রনাথ ভট্টাচার্য ও তার ছেলে। বসিরহাট দক্ষিণের বিধায়ক ফুটবলার দীপেন্দু বিশ্বাস এবং অভিনেত্রী তনুশ্রী চক্রবর্তীও এ দিন গেরুয়া শিবিরে নাম লেখান। এ দিন হেস্টিংসে রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ তাদের হাতে দলীয় পতাকা তুলে দেন। 

একই সঙ্গে বিধানসভা নির্বাচনের টিকিট পেয়েও এ দিন দলবদল করেন মালদার হবিবপুরের বিধায়ক সরলা মুর্মু। তার সঙ্গে মালদা জেলা সভাপতি গৌরচন্দ্র মণ্ডল, জেলা কো-অর্ডিনেটর অম্লান ভাদুড়িও পদ্মশিবিরে নাম লেখান। পদ্মে যোগ দিয়েছেন জেলা পরিষদের ১৪ সদস্য। ৩৪ আসনের এই জেলা পরিষদে তৃণমূলের ৩১ সদস্য ছিলেন। এ মুহূর্তে বিজেপির সদস্য সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ১৯।