দিন দিন আরো অগ্নিগর্ভ হয়ে উঠছে মিয়ানমার। রাস্তায় প্রতিবাদী মানুষের বিক্ষোভ যেমন থামছে না, তেমনি সেনা ও নিরাপত্তা বাহিনী আরো মারমুখী হয়ে উঠছে। 

বুধবার সন্ধ্যায় নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে সাগাইং অঞ্চলে তাজে শহরে আরো ১১ জন বিক্ষোভকারী প্রাণ হারিয়েছে। দেশটিতে জান্তাবিরোধী বিক্ষোভে এ পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা দাঁড়ালো ৬১২ জনে। খবর মিয়ানমার নাউ ও ইরাবতীর।

বুধবার দেশটির উত্তর-পশ্চিমের ওই শহরে নিরাপত্তা বাহিনীর বিরুদ্ধে বন্দুক ও আগুনবোমা নিয়ে লড়তে দেখা গেছে বিক্ষোভকারীদের। বিক্ষোভ দমনের জন্য শুরুতে ছয় ট্রাক সেনা মোতায়েন করা হয়। সেখানে তাদের সঙ্গে বন্দুক, ছুরি ও আগুনবোমা নিয়ে লড়াইয়ে নামেন বিক্ষোভকারীরা। এর ফলে আরও পাঁচ ট্রাক সেনা  সেখানে পাঠানো হয়। সংঘর্ষ চলাকালে সেনাসদস্যদের গুলিতে অন্তত ১১ জন নিহত হন। আহত হন ২০ জন। তবে সেনাসদস্যদের হতাহতের বিষয়ে কিছু জানায়নি সংবাদমাধ্যমগুলো।

গত ১  ফেব্রুয়ারি মিয়ানমারে সামরিক অভ্যুত্থানের মাধ্যমে ক্ষমতা দখল করে দেশটির সেনাবাহিনী। তার আগে তারা মিয়ানমারের ¯স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চিকে আটক করে। এরপর দুই মাস ধরে জান্তাবিরোধী বিক্ষোভে দেশটিতে ব্যাপক সহিংসতা ছড়িয়ে পড়েছে। 

এদিকে সেনাবিরোধী বিক্ষোভ থেকে দেশটির একজন জনপ্রিয় অভিনেতা, গায়ক ও মডেলকে গ্রেফতার করেছে সেনাবাহিনী। মিয়ানমার ও থাইল্যান্ডের বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে পইং তাখোন নামের ওই সেলিব্রেটি সব সময় সশরীরে বা অনলাইনে বিক্ষোভে সক্রিয় ছিলেন। এ নিয়ে দেশটিতে প্রায় ১২০ জন সেলিব্রেটিকে আটক করলো জান্তা সরকার।  

মন্তব্য করুন