মিয়ানমারের সেনা শাসন বিরোধী জনগণ নতুন করে অসহযোগ আন্দোলনের ডাক দিয়েছে। আসিয়ান নেতাদের সঙ্গে জান্তাপ্রধানের সমঝোতা চুক্তি হওয়ার পর এর বিরুদ্ধে আন্দোলনরত জনগণ নিজেদের অসন্তুষ্টি প্রকাশ করে।

রোববার তারা তাদের আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার কথা ব্যক্ত করে সোমবার নতুন রূপরেখা জানিয়ে দেয়। অসহযোগিতার অংশ হিসেবে নাগরিকরা বিদ্যুৎ বিল ও কৃষি ঋণ পরিশোধ পরিশোধ করা বন্ধ করে দেবে এবং ছেলেমেয়েদের স্কুলে যাওয়া থেকে বিরত রাখবে। খবর রয়টার্সের।

আসিয়ান নেতাদের সঙ্গে বৈঠকের পর শনিবার জান্তাপ্রধান মিন অং হ্লায়িং সঙ্কট সমাধানের বিষয়ে নিজেদের ইতিবাচক মনোভাবের কথা জানায়। এ বিষয়ে পাঁচটি পয়েন্টে ঐকমত্যেও পৌঁছায় দুই পক্ষ। তবে চুক্তিতে অং সান সু চিসহ রাজনৈতিক বন্দিদের মুক্তির বিষয়ে কোনো নির্দিষ্ট সময় উল্লেখ করা হয়নি। তাছাড়া সঙ্কট মেটানোর জন্যে চুক্তিতে সেনাপ্রধানকে সময়ও নির্ধারিত করে দেয়া হয়নি।

মিয়ানমারের বিক্ষুব্ধ জনগণ এই চুক্তিতে সন্তুষ্ট হতে পারেনি। রোববার তারা বিক্ষিপ্তভাবে প্রতিবাদ জানায়। আর সোমবার আন্দোলনের নতুন কর্মসূচি ঘোষণা করেন।

গণতন্ত্রপন্থী আন্দোলনকারীরা সোমবার থেকে বিদ্যুতের বিল এবং কৃষি ঋণ প্রদান এবং শিশুদের স্কুলে যাওয়া বন্ধ করার ঘোষণা দিয়ে তাদের আন্দোলনকে আরো বেগবান করার আহ্বান জানান।

রোববার কেন্দ্রীয় শহর মনোয়ায় এক বিক্ষোভ অনুষ্ঠানে একজন আন্দোলনকারী খ্যান্ট ওয়াই ফিয়ো বলেন, সামরিক জান্তার বিরুদ্ধে আন্দোলন সফল করার জন্য আমাদের সকলকে একত্র হয়ে কাজ করতে হবে।

এদিকে আন্তর্জাতিক সাহায্য সংস্থাগুলো সতর্ক করে বলেছে, মিয়ানমারে এই রাজনৈতিক অচলাবস্থা দেশটিকে অর্থনৈতিকভাবে পঙ্গু করছে এবং ব্যাপক জনগণের ক্ষুধার সম্ভাবনা বাড়িয়ে তুলেছে।

বিষয় : মিয়ানমার অসহযোগ আন্দোলন

মন্তব্য করুন