নারদা কাণ্ডে জামিন পেয়েছেন শোভন চট্টোপাধ্যায়। ভারতের হাইকোর্টের এই রায়ের পর স্বস্তির কথা জানিয়েছেন বৈশাখী। তিনি বলেছেন, ‌‘গতকাল রাতে অনেকদিন পর ভালো ঘুমেয়েছি। গত ১১ দিন আমার কাছে দু:স্বপ্নের মতো ছিল।’

বৈশাখী বলেন, ‘আইনের ওপর আস্থা রেখেছিলাম। আশা করেছিলাম, ওরা জামিন পাবে। এটা আনন্দের। সাময়িক স্বস্তি তো বটেই। তবে আগামী দিনের লড়াই জারি থাকবে।’

এই সময়ের খবরে বলা হয়, নারদা মামলায় শোভন চট্টোপাধ্যায়কে গ্রেপ্তারের পর থেকেই ছুটে বেড়ান বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়। শোভনকে ঘরে ফেরাতে সব চেষ্টা করেছেন তিনি। অবশেষে জামিনে মুক্ত হয়েছেন শোভন। তারপরই স্বস্তির কথা জানান বৈশাখী।

বৈশাখী আরও বলেন, ‘শোভনও খুবই উদ্বিগ্ন ছিলেন। তিনি রাতে ঘুমাতেন না। কখনও চুপ করে থাকতেন। আশা করছি, সময়ের সঙ্গে সঙ্গে তিনি এটা থেকে বেরিয়ে আসবেন। আমি চাই, শোভন স্বাভাবিক জীবনে ফিরুক।’

উল্লেখ্য, নারদা মামলায় শোভন চট্টোপাধ্যায়ের গ্রেপ্তারের পর তার সঙ্গে সবসময় দেখা যায় বৈশাখীকে। গ্রেপ্তারের দিন যখন মধ্যরাতে শোভনকে সংশোধনাগারে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে, তখন কান্নায় ভেঙে পড়েছিলেন বৈশাখী। আবার এসএসকেএম হাসপাতালে শোভনের চিকিৎসা নিয়ে তদারকি করতেও দেখা গেছে বৈশাখীকে। হাসপাতাল থেকে শোভনকে ছাড়া নিয়ে টালবাহানা নিয়েও ক্ষোভ প্রকাশ করেন বৈশাখী। শেষ পর্যন্ত শোভনের জামিন মেলার পর বৈশাখীর গলায় স্বস্তির সুর শোনা গেল।