ভারতে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৬ হাজার ১৪৮ জন। এটিই এখন পর্যন্ত দেশটিতে একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যু। এ নিয়ে করোনায় এ পর্যন্ত দেশটিতে মারা গেছেন ৩ লাখ ৫৯ হাজার ৬৭৬ জন।

এর আগে, ১২ ফেব্রুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রে একদিনে ৫ হাজার ৪৪৪ জনের মৃত্যু হয়েছিল, যা এতদিন বিশ্বে করোনায় দৈনিক মৃত্যুর সর্বোচ্চ রেকর্ড হয়েছিল।

করোনাভাইরাসে গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে আরও ৯৪ হাজার ৫২ জন আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছেন। এ নিয়ে টানা তৃতীয়দিনের মতো দৈনিক শনাক্তের সংখ্যা লাখের নিচে। দেশটিতে এখন পর্যন্ত মোট শনাক্ত হয়েছেন ২ কোটি ৯১ লাখ ৮৩ হাজার ১২১ জন। খবর এনডিটিভির

গত মার্চের মাঝামাঝিতে ভারতে একদিনে শনাক্ত করোনা রোগীর সংখ্যা ছিল ২০ হাজারের কাছাকাছি। তারপর দেশটিতে সংক্রমণ বাড়ে।

গত ৩ এপ্রিল ভারতে করোনায় সংক্রমিত শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দুই কোটির মাইলফলক ছাড়ায়। ২৩ মে করোনায় মৃত্যু তিন লাখের মাইলফলক ছাড়ায়।

গত ৩০ এপ্রিল ভারতে প্রথম একদিনে ৪ লাখের বেশি মানুষের করোনা সংক্রমণ ধরা পড়ে। তারপর একাধিক দিন দেশটিতে ৪ লাখের বেশি রোগী শনাক্ত হয়। ৭ মে ভারতে প্রথম একদিনে করোনায় ৪ হাজারের বেশি মানুষের মৃত্যু হয়। তারপর একাধিক দিন দেশটিতে ৪ হাজারের বেশি মানুষের মৃত্যু হয়।

গত ২-৩ সপ্তাহ ধরে দেশটিতে মৃত্যু ও সংক্রমণ কমতে শুরু করে। গত তিন ধরে ভারতে মৃত্যু দুই থেকে আড়াই হাজারের মধ্যেই ছিল। তবে বুধবার বিহার সরকারের পক্ষ থেকে রাজ্যে করোনায় মৃত্যুর হিসাবে সংশোধনী আনা হয়। জানানো হয়, রাজ্যে করোনায় মোট ৯ হাজার ৪২৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। এই সংখ্যা আগের হিসাবের চেয়ে অনেক বেশি, যা করোনায় মৃত্যুর জাতীয় হিসাবেও প্রভাব ফেলেছে। বিহারে গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু দেখানো হয়েছে ৩ হাজার ৯৭১ জনের।

ভারতে করোনার সংক্রমণ সবচেয়ে বেশি মহারাষ্ট্রে। এরপর রয়েছে কর্ণাটক, কেরালা, তামিলনাড়ু, উত্তরপ্রদেশ, অন্ধ্রপ্রদেশ, দিল্লি, পশ্চিমবঙ্গ, ছত্তিশগড়, রাজস্থান, গুজরাট, মধ্যপ্রদেশ ও ওডিশা।

করোনা পরিস্থিতির মারাত্মক অবনতির মুখে ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। পাশাপাশি টিকাদান কার্যক্রম জোরদার করা হয়েছে। 

মন্তব্য করুন