পশ্চিমবঙ্গ ভেঙে আলাদা রাজ্যের দাবিতে অনড় অবস্থানে রয়েছেন আলিপুরদুয়ারের বিজেপির সংসদ সদস্য জন বার্লা। উত্তরবঙ্গকে আলাদা রাজ্য অথবা কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল করার দাবি নিয়ে ভারতের প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দ্বারস্থ হবেন তিনি। শনিবার সাংবাদিকদের এমনটাই জানালেন জন বার্লা।

শনিবার আলিপুরদুয়ার চৌপিথি এলাকায় নিজের সাংসদ কার্যালয়ের উদ্বোধন করেন জন বার্লা। সেখান থেকে তিনি বুঝিয়ে বলেন, কেন উত্তরবঙ্গকে আলাদা রাজ্য বা কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল ঘোষণার দাবি করেছেন। তার অভিযোগ, উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন এলাকা বিশেষ করে ‘চিকেন নেক’ এলাকার দখল নিয়েছেন বাইরের বাংলাদেশি ও রোহিঙ্গারা। তারা রেশন কার্ড, ভোটার কার্ড সব বানিয়েছেন। অথচ সাধারণ নাগরিক সেবা থেকে স্থানীয়রা বঞ্চিত হচ্ছেন। 

জন বার্লা বলেন, এই এলাকার প্রচুর মানুষ নির্বাচনের পর ঘরছাড়া, বাড়ি ফিরতে তাদের ঘুষ দিতে হচ্ছে। দেশের গুরুত্বপূর্ণ এই ‘চিকেন নেক’ এলাকাকে সুরক্ষিত করতে হবে। আর এসব কারণেই উত্তরবঙ্গকে আলাদা রাজ্য অথবা কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল ঘোষণার দাবি তুলেছেন।

বিজেপির এই সংসদ সদস্য বলেন, এ দাবি আসলে সাধারণ নাগরিকদের। তিনি তা তুলে ধরেছেন মাত্র। এ দিন তিনি উত্তরবঙ্গের কামতাপুরি আন্দোলন, গ্রেটার কোচবিহারের দাবি, ষষ্ঠ তফশিলি তালিকভুক্ত করার দাবির কথাও তুলে আনেন। সাংসদ জানিয়েছেন, এই সব দাবিদারদের কাউকে অসন্তুষ্ট করতে চান না তিনি। সেই কারণে সামগ্রিকভাবে উত্তরবঙ্গকে আলাদা রাজ্য অথবা কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল করার দাবি তুলেছেন এবং তিনি এই দাবিতে এখনও অনড়।

বিজেপি সাংসদের এই দাবির বিষয় সামনে আসতেই কড়া প্রতিক্রিয়া দিয়েছিলেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এবার দলগতভাবে সেই দাবির পিছনে বিজেপির সঙ্গে সরাসরি কেএলও জঙ্গিগোষ্ঠীর যোগের জোরালো অভিযোগ তুলল তৃণমূল। তাদের বক্তব্য, যখন বিজেপি বিধায়ক ও সাংসদরা উত্তরবঙ্গকে বিচ্ছিন্ন করার দাবি তুলছে, ঠিক সে সময়েই কেএলও প্রধান জীবন সিং তার গোপন ডেরায় বসে অস্ত্র উঁচিয়ে সেই দাবিই তুলছেন। এটা কাকতালীয় নয়। দলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় টুইটে বলেছেন, কেন্দ্রে ক্ষমতাসীন বিজেপির বিষের অভাব নেই। গত মে মাসের ফলাফল থেকে শিক্ষা নেওয়া উচিত ছিল যে, বাংলায় এ জিনিস চলবে না। 

দলের রাজ্যসভার মুখ্য সচেতক সুখেন্দুশেখর রায় বলেছেন, বিজেপি নেতাদের পাশাপাশি কেএলও নেতার একই সময় একই দাবি! নেহাত কাকতালীয় নয়। এর সঙ্গে সুনির্দিষ্ট যোগাযোগ আছে বলেই আমরা সন্দেহ করছি

জন বার্লার দাবি নিয়ে তৃণমূল কংগ্রেসের রাজ্য সম্পাদক সৌরভ চক্রবর্তী বলেন, হিম্মত থাকলে বাংলা ভাগ করে দেখাক। দর বাড়ানোর জন্য সাংসদ এসব করছেন। উত্তরবঙ্গকে অশান্ত করার চেষ্টা করছেন।

বিষয় : পশ্চিমবঙ্গ বিজেপি

মন্তব্য করুন