ইরানের নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট ইব্রাহীম রাইসিকে ‘নৃশংস শাসক’ হিসেবে উল্লেখ করে দেশটির সঙ্গে বাণিজ্যিক সম্পর্ক নিয়ে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে ভাবতে বলেছেন ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী নাফতালি বেনেত।

রোববার ইসরায়েলের মন্ত্রিসভার বৈঠকে নাফতালি বেনেত এ মন্তব্য করেছেন জানিয়েছে বিবিসি।

আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে উদ্দেশ্য করে ইসরায়েল প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ‘বিশ্বকে জেগে উঠতে হবে, তাদের বুঝতে হবে তারা কার সাথে আসলে বাণিজ্য করতে যাচ্ছে।’

পরমাণু শক্তিধর ইরানের সঙ্গে ইসরায়েলের চলমান তর্কযুদ্ধ উসকে দিয়ে নাফতালি বেনেত বলেছেন, ‘ব্যাপক ধ্বংযজ্ঞের জন্য নৃশংস এই শাসকের কাছে বিপুল অস্ত্র থাকা নিশ্চয়ই আমরা সমর্থন করব না।’

পরমাণু অস্ত্রের প্রয়োগ নিয়ে এশিয়ার অস্ত্রধারী দুই দেশ ইরান ও ইসরায়েলের মধ্যে ছায়া যুদ্ধটা দীর্ঘদিন ধরে চলছে। দুই দেশ এই নিয়ে বহুবার এ নিয়ে তর্কযুদ্ধে জড়ালেও সংঘাতে জড়ায়নি। তবে ইরানের পরমাণু বিষয়ক গবেষণাও পরিস্থিতিকে আরও জটিল করতে পারে বলে ভাবছেন বিশেষজ্ঞরা। 

গত বছর ইরানের প্রথম সারির পরমাণু বিজ্ঞানী মোহসেন ফাখরিজাদের খুনের পেছনে ইসরায়েল জড়িত বলে অভিযোগ এনেছ ইরান। একইসঙ্গে গত বছরের এপ্রিলে ইউরেনিয়াম প্লান্টে হামলার জন্যও ইসরায়েলকেই দায় দিচ্ছে ইরান।

অন্যদিকে ইসরায়েল বলছে, ইরানের পরমাণু কার্যক্রম কখনও শান্তিপূর্ণ নয়। তারা পরমাণু অস্ত্র তৈরিতেই মনযোগী। 

অতি রক্ষণশীল মনোভাবাপন্ন বিচারক ইব্রাহীম রাইসি ভোটে জিতে গত শনিবার ক্ষমতায় আসীন হয়েছেন।

এক বিবৃতিতে তিনি শপথ করে বলেছেন, গোটা জাতির নেতা হয়ে সরকারের প্রতি জনগণের বিশ্বাস আরও দৃঢ় করবেন। সেই সঙ্গে দুর্নীতিবিরোধী সরকার প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে প্রত্যয়েরও কথা জানিয়েছেন তিনি।

তবে অভিযোগ রয়েছে, ইরানের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ফলাফল একপাক্ষিকভাবে রাইসির দিকেই গেছে।

আগামী আগস্টে অভিষিক্ত হতে যাওয়া ইরানের নতুন প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে বড় অভিযোগ, ব্হু রাজনৈতিক বন্দির ফাঁসির রায়ে জড়িত ছিলেন প্রথম সারির এ বিচারক। তার উপর যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞাও বহাল রয়েছে।

২০১৫ সালের চুক্তিতে ইরানের পরমাণু কর্মসূচি সীমাবদ্ধ করার চেষ্টা করা হয়েছিল। তার পরিবর্তে দেশটির ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়া হয়। 

তবে নিষেধাজ্ঞার শর্ত ভাঙ্গার অভিযোগে সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ২০১৮ সালে এই চুক্তি বাতিল করে ইরানের উপর পুনরায় নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেন।

এদিকে আগামী সোমবার ভিয়েনায় পরমাণু চুক্তি নবায়ন নিয়ে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে বৈঠক করতে যাচ্ছে ইরান। বিশ্বের ক্ষমতাধর ৬টি রাষ্ট্রের সঙ্গে বৈঠক করবে ইরান।

এছাড়া যুক্তরাষ্ট্রের স্টেট ডিপার্টমেন্টের একজন মুখপাত্র রয়টার্সকে জানিয়েছেন, রাইসির অভিষেকের পর পরমাণু চুক্তি নিয়ে তারা অনানুষ্ঠানিক আলাপ চালিয়ে যাবেন।





বিষয় : ইব্রাহীম রাইসি নাফতালি বেনেত ইরান ইসরায়েল

মন্তব্য করুন