করোনাভাইরাস মোকাবিলায় একদিনে রেকর্ড সংখ্যক টিকা দিয়েছে ভারত। সোমবার গোটা দেশে ৮৬ লাখ মানুষকে টিকা দেওয়া হয়েছে। এছাড়া আগামী কয়েকদিনও এভাবেই টিকাকরণ চলবে দেশটিতে। সোমবার রাতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এক টুইটে এ কথা জানিয়েছেন।

যারা টিকা নিয়েছেন এবং যারা টিকা দিয়েছেন, সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন মোদি। তিনি বলেন, দিনটি অত্যন্ত আনন্দের। করোনার সঙ্গে লড়াইয়ে টিকাকরণ সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

ভারতের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে, সোমবার একদিনে ৮৬ লাখ ১৬ হাজার ৩৭৩ জনকে টিকা দেওয়া হয়েছে। এর আগে ২ এপ্রিল একদিনে সবচেয়ে বেশি টিকা দেওয়া হয়েছিল; ৪২ লাখ ৬৫ হাজার ১৫৭ জন।

সোমবার থেকে দেশের টিকাকরণের পুরো দায়িত্ব কেন্দ্রীয় সরকার নিজের হাতে নিয়ে নিয়েছে। মাঝে দেড় মাসের জন্য রাজ্যগুলোকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু সপ্তাহখানেক আগে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ঘোষণা দেন, আবার কেন্দ্র টিকাকরণের গোটা দায়িত্ব নিজেদের হাতে নেবে।

১৮ বছরের উপরে সবাইকে বিনামূল্যে টিকা দেওয়া হবে ভারতে। মূলত মোট টিকা উৎপাদনের ৭৫ ভাগ কেন্দ্রীয় সরকার কিনে নিচ্ছে। এরপর তা বিনামূল্যে নাগরিকদের দেওয়া হচ্ছে। ২৫ ভাগ টিকা কিনছে দেশের বেসরকারি হাসপাতালগুলো। তারা অর্থের বিনিময়ে টিকা দিচ্ছে। তবে নির্দিষ্ট দাম বেঁধে দিয়েছে কেন্দ্র।

টিকাকরণে সোমবার থেকেই কেন্দ্রীয় সরকার একটি নতুন প্রচার শুরু করেছে। এর নাম দেওয়া হয়েছে ‘সবার জন্য বিনামূল্যে টিকা’। কেন্দ্র চাইছে দ্রুত দেশের সব মানুষকে টিকার প্রথম ডোজ দিয়ে দিতে। বিশেষত গরিব মানুষের কাছে যাতে টিকা পৌঁছে দেওয়া যায়, তার ব্যবস্থা করতে। কোনো কোনো অঞ্চলে টিকা নিয়ে ভয় তৈরি হয়েছে। অনেকেই টিকা নিতে চাইছে না। সবার কাছে পৌঁছাতে চাইছে কেন্দ্র। সে কারণেই এ নতুন প্রচারাভিযান শুরু হয়েছে।

কেন্দ্রীয় সরকার জানিয়েছে, সোমবারের টিকাকরণ অভিযানে বেশকিছু রাজ্যে ভালো ফল মিলেছে। এতদিন আসাম রাজ্যে যথেষ্ট টিকা দেওয়া যাচ্ছিল না। সোমবার সেখানে তিন লাখ ১৯ হাজার মানুষকে টিকা দেওয়া হয়েছে। রাজ্যটিতে আগামী ১০ দিন প্রতিদিন অন্তত তিন লাখ মানুষকে টিকা দেওয়া হবে বলে জানানো হয়েছে।

সোমবার মধ্যপ্রদেশে টিকা পেয়েছেন ১৬ লাখ মানুষ। উত্তর প্রদেশে প্রায় সাত লাখ। এতদিন উত্তর প্রদেশেও টিকাকরণ নিয়ে নানা সমস্যা দেখা যাচ্ছিল। রাজস্থানে দেওয়া হয়েছে প্রায় সাড়ে চার লাখ। মহারাষ্ট্রে প্রায় চার লাখ। পশ্চিমবঙ্গে তিন লাখের সামান্য বেশি।

ভারত সরকার জানিয়েছে, মে মাসে গোটা দেশে সাত দশমিক নয় কোটি টিকা দেওয়া হয়েছিল। জুনে তা বেড়ে হয়েছে প্রায় ১২ কোটি। এখনও তিন কোটি টিকা হাতে আছে বলেও জানানো হয়েছে।

বিষয় : টিকা

মন্তব্য করুন