করোনাভাইরাসের কারণে বিশ্বের প্রায় প্রতিটি দেশই যখন মাস্ক পরার ওপর জোর দিয়ে যাচ্ছে; তখন 'সংকট' অনেকটাই কেটে যাওয়া এতে 'ছাড়' দিচ্ছে ইতালি।

আগামী ২৮ জুন থেকে দেশটিতে মাস্ক পরার বাধ্যবাধকতা থাকছে না। কিছু জায়গায় যে কেউ ইচ্ছে করলে মাস্ক পরতে পারবেন; তবে এই ব্যাপারে আর জোর করা যাবে না।

সংবাদ মাধ্যম আল জাজিরা বলছে, করোনার প্রকোপ কমে আসায় এমন পদক্ষেপ নিয়েছে দেশটির সরকার। তবে বড় ধরনের সমাবেশে অংশ নিলে সেক্ষেত্রে সঙ্গে অন্তত মাস্ক রাখার কথা বলা হয়েছে।

করোনায় ইউরোপে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত দেশ ইতালি।মহামারি এই ভাইরাসে একটা সময় দেশটিতে কয়েক হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছে প্রতিদিন। সংক্রমণে প্রথম সাড়িতে ছিল এই দেশ। গত বছরের অক্টোবরে ইতালিতে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করা হয়।

করোনা পরিস্থিতি কিছুটা উন্নতির দিকে যাওয়ায় গত এপ্রিল থেকে প্রধানমন্ত্রী মারিও দ্রাঘির সরকার বিধিনিষেধ কিছুটা শিথিল করতে থাকে। খুলে দেওয়া হয় রেস্টুরেন্ট, বার ও জিমনেশিয়ামের মতো জায়গাগুলো। এতদিন ধরে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলকই ছিল।

সরকারের পক্ষ থেকে সোমবার বলা হয়েছে, পুরোপুরি যে মাস্কের ব্যবহার তুলে দেওয়া হচ্ছে তা না। জনসমাগম হয় এমন জায়গা ও গণপরিবহনে মাস্ক পরতে হবে।

মাস্ক বাধ্যতামূলক না রাখার সিদ্ধান্তটি কার্যকর হবে ইতালির ‘হোয়াইট’ জোনে। ভাইরাসটি কিভাবে দ্রুত ছড়ায় তার উপর ভিত্তি করে এই জোন বিভাজন করা হয়েছে। প্রত্যন্ত উত্তর পশ্চিমাঞ্চলীয় ক্ষুদ্র এলাকা অস্তা ভ্যালি ছাড়া পুরো ইতালিই হোয়াইট জোনের আওতাভুক্ত। বিশেষজ্ঞরা ধারনা করছেন ২৮ জুন নাগাদ পুরো ইতালিই হোয়াইট জোনের আওতায় চলে আসবে।

করোনা মহামারি শুরুর পর থেকে ইতালিতে রেকর্ড এক লাখ ২৭ হাজার ২৯১ জন মারা গেছে এবং সংক্রমিত হয়েছে ৪২ লাখ ৫০ হাজার জন।


বিষয় : করোনা ইতালি

মন্তব্য করুন