করোনাভাইরাসের ডেল্টা (ভারতীয়) ভেরিয়েন্টে ইউরোপের দেশ পর্তুগাল বাড়ছে উদ্বেগ। বিশেষ করে দেশটির রাজধানী লিসবনে সংক্রমণ বাড়ছে।

বিশেষজ্ঞদের অনেকে মনে করছেন, ভারতীয় এই ভেরিয়েন্ট পর্তুগালে নতুন করে করোনার আরও একটি ঢেউ তৈরি করতে পারে। এখনই যদি সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব না হয় তাহলে দেশটি আরও একবার করোনা বিপর্যয়ের সম্মুখীন হতে পারে। এ পরিপ্রেক্ষিতে এখানকার প্রবাসী বাংলাদেশিদের দেখা দিয়েছে আতঙ্ক। 

পর্তুগালের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় (ডিজিএস) গনমাধ্যমকে জানায়, গত দুই সপ্তাহে দেশটিতে যে হারে করোনার ভারতীয় ধরন হিসেবে পরিচিত ডেল্টা ভেরিয়েন্ট আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে তা উদ্বেগজনক। অবস্থার উন্নতি না হলে লিসবনে আবারও কঠোর বিধিনিষেধ দেওয়া হবে।

এদিকে সোমবার সংবাদ সম্মেলনে পর্তুগালের স্বাস্থ্যমন্ত্রী মারতা টেমিদো জানান, পর্তুগালে ৭০ শতাংশের বেশি সংক্রমিত অঞ্চল হচ্ছে রাজধানী লিসবন। মৃত্যুর হারেও একই চিত্র লক্ষ্য করা গেছে। সোমবার দেশব্যাপী আক্রান্ত হয়েছে ৭৫৬ জন, এর মধ্যে লিসবনে ৪৮৪ জন। মারা যাওয়া ৩ জনের সবাই লিসবনের।

যদিও গত ১৪ জুন গোটাদেশ স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরলেও লিসবনসহ কয়েকটি মিউনিসিপ্যালিটি ছিল বিধিনিষেধের মধ্যে। গত সপ্তাহ পর্যন্ত ছুটির দিনগুলোতে লিসবন পুরোদেশ থেকে বিচ্ছিন্ন ছিল। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কেউ এই জোন থেকে বের হতে পারেননি, কেউ প্রবেশও করতে পারেননি।

বিষয় : করোনাভাইরাস পর্তুগাল ডেল্টা ভেরিয়েন্ট

মন্তব্য করুন