করোনা মহামারির কারণে দীর্ঘ নয় মাস বন্ধ থাকার পর অবশেষে দর্শনার্থীদের জন্য খুলে দেয়া হয়েছে আইফেল টাওয়ার। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর থেকে এত বেশি সময় আর কখনো বন্ধ থাকেনি ফ্রান্সের আভিজাত্য ও পরিচিতির প্রতীক এই বিখ্যাত টাওয়ারটি। অবশ্য খুলে দেয়া হলেও কিছু বিধিনিষেধ এখনো রাখা হয়েছে। 

আইফেল টাওয়ারে গেলে দর্শনার্থীদের টিকার প্রমাণপত্র বা করোনা পরীক্ষার নেগেটিভ রিপোর্ট দেখাতে হবে। ফ্রান্স সরকারের সাম্প্রতিক নির্দেশনার অংশ হিসেবেই এগুলো দেখাতে হবে বলে জানানো হয়েছে। খবর এএফপি, এনডিটিভির।

বর্তমানে প্রতিদিন আইফেল টাওয়ারে ১৩ হাজার মানুষকে প্রবেশের অনুমতি দেয়া হয়েছে। সাধারণ সময়ের তুলনায় এই সংখ্যা অর্ধেক। মূলত সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতেই এমন পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।

শুক্রবার আইফেল টাওয়ার খুলে দেয়ার আগে টাওয়ারের পরিচালনা প্রতিষ্ঠানের প্রধান জাঁ ফ্রাঁসোয়া মার্টিন বলেন, সাধারণ অবস্থার তুলনায় এটা একটা অতিরিক্ত কাজ। এতে কিছু জটিল তা সৃষ্টি হবে। তবে এটি নিয়ন্ত্রণ করা অসম্ভব হবে না। প্রতিষ্ঠানের স্টাফদের মাধ্যমে চূড়ান্ত নিরাপত্তা যাচাইয়ের পর তিনি ঘোষণা দেন, আইফেল টাওয়ার পর্যটকদের জন্য প্রস্তুত রয়েছে।   

ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসের কেন্দ্রে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে থাকা লোহার তৈরি আইফেল টাওয়ারের উচ্চতা ১ হাজার ৫০ ফুট বা ৩২০ মিটার। আইফেল টাওয়ার খুলে দেয়া হলেও এর চূড়ায় যেতে পারবেন সীমিত সংখ্যক দর্শনার্থীরা।

প্রকৌশলী গুস্তাভ আইফেলের নামে তৈরি এই টাওয়ারটি ১৮৮৯ সালের ৩১ মার্চ সাধারণ মানুষের জন্য জন্য খুলে দেয়া হয়েছিল। তারপর থেকে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর আইফেল টাওয়ার কখনও দীর্ঘ সময়ের জন্য বন্ধ থাকেনি।