অলিম্পিকে অংশগ্রহণের জন্য সব অ্যাথলেটদেরই একটি স্বপ্ন থাকে। দেশের হয়ে গ্রেটেস্ট শো অন আর্থে অংশগ্রহণ করাই অনেক গর্বের কথা। কিন্তু এমন গর্বকে পায়ে ঠেলে দিলেন আলজেরিয়ার এক অ্যাথলেট। অলিম্পিক জুডোর ৭৩ কেজি ওজনশ্রেণিতে আলজেরিয়ান জুডোকা ফেথি নুরিনের প্রতিপক্ষ ছিলেন সুদানের মোহামেদ আবদালরাসুল। সে ম্যাচে জিতলে পরের রাউন্ডে নুরিনের প্রতিপক্ষ হতেন ইসরায়েলের তোহার বাটবাল। 

কিন্তু এর আগেই তিনি টোকিও অলিম্পিক থেকে সরে দাঁড়ালেন। এই কারণে শাস্তি পেলেন নুরিন এবং তার কোচ আমের বেন ইয়াকলিফ। তাদের অলিম্পিক থেকে প্রত্যাহার করা হয়েছে এবং দেশে ফেরত পাঠানো হবে। এমনটাই নিশ্চিত করেছে আন্তর্জাতিক জুডো ফেডারেশনের (আইজেএফ) নির্বাহী কমিটি।

নিজের এমন সিদ্ধান্তের বিষয়ে আলজেরিয়ান এক টিভিকে নুরিন বলেন, ‘অলিম্পিকে আসতে অনেক কষ্ট করেছি। কিন্তু ফিলিস্তিনের পাশে থাকাটা সবার আগে। তাদের বিষয়টি সবকিছুর ঊর্ধ্বে। তাই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি। এটাই চূড়ান্ত।’

নুরিনের সিদ্ধান্তে মনক্ষুণ্ন না হয়ে উল্টো বাহবা দিয়েছেন তার কোচ আমের বেন ইয়াকলিফ। তিনি বলেছেন, ‘আমাদের ভাগ্যটা ভালো হয়নি এবার। ড্রয়ের কারণে একজন ইসরায়েলি প্রতিপক্ষ পেয়েছি। এ কারণে আমাদের সরে যেতে হচ্ছে। নুরিন সঠিক সিদ্ধান্তই নিয়েছে।’

আন্তর্জাতিক জুডো ফেডারেশন (আইজেএফ) এক বিবৃতিতে বলেছে, ‘আন্তর্জাতিক জুডো ফেডারেশনের দর্শনের পুরো বিপরীত সিদ্ধান্ত। আইজেএফ সব সময় কড়া বৈষম্যহীন নীতি মেনে চলে। জুডোর মূল্যবোধের মাধ্যমে সংহতি বাড়ানোই মূল লক্ষ্য। এই খেলার অন্যতম মূল ভিত্তি হলো সম্মানবোধ ও বন্ধুত্ব। সিদ্ধান্তটি আমাদের খেলার মূলনীতির পরিপন্থী।’