যৌথ সামরিক মহড়া শুরু করেছে চীন ও রাশিয়া।কৌশলগত দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক জোরদার করার লক্ষ্যে এ সামরিক মহড়া করছে দেশ দুটি। 

সোমবার থেকে চীনের উত্তর-মধ্যাঞ্চলীয় নিয়াংজিয়া প্রদেশে এই সামরিক মহড়া শুরু হয়ে চলবে শুক্রবার পর্যন্ত।‘দ্য সিবু/ কো অপারেশন-২০২১’ নামের এই যৌথ মহড়ায় দুই দেশের ১০ হাজারের বেশি স্থল সেনা ও বিমান সেনা অংশ নিচ্ছেন। খবর আল-জাজিরার।  

রাশিয়ার সামরিক বাহিনীর পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, যৌথ সামরিক মহড়ায় অংশ নিতে দেশটি থেকে সুখোই-৩০ এসএম যুদ্ধবিমান, স্বয়ংক্রিয় রাইফেল ইউনিট ও আকাশ প্রতিরক্ষাব্যবস্থা চীনে পাঠানো হয়েছে।

২০০৫ সালের পর থেকে চীন ও রাশিয়া নিয়মিত যৌথ সামরিক মহড়ার আয়োজন করে আসছে। তবে এবারের মহড়ায় প্রথমবারের মতো রুশ সেনারা চীনা সেনাবাহিনীর অস্ত্র ব্যবহার করবে বলে রাশিয়ার সংবাদমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয়েছে।

দুই দেশের কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে চীনের রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম সিনহুয়ার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, যৌথ সামরিক মহড়া আয়োজনের উদ্দেশ্য হচ্ছে সন্ত্রাসবাদবিরোধী কার্যক্রমে মিত্রতার সম্পর্ক জোরদার করা। এছাড়াও আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক নিরাপত্তা-স্থিতিশীলতা রক্ষায় দুই দেশের প্রত্যয়ের পাশাপাশি সক্ষমতা প্রদর্শন করা। 

সিনহুয়া আরও বলছে, কৌশলগত পারস্পরিক বিশ্বাস, ব্যবহারিক বিনিময় ও সমন্বয়ের নতুন যুগে প্রবেশ করেছে চীন ও রাশিয়া। এ ক্ষেত্রে কৌশলগত অংশীদারত্ব জোরদারে এবারের যৌথ সামরিক মহড়া দুই দেশের সম্পর্ককে নতুন উচ্চতায় নিয়ে যাবে।

চীনের উত্তর-মধ্যাঞ্চলীয় নিয়াংজিয়া প্রদেশটি জিনজিয়াংয়ের সীমান্ত লাগোয়া। জিনজিয়াংয়ে উইঘুর মুসলিমদের ওপর বেইজিং দমনপীড়ন চালিয়ে মানবাধিকার লঙ্ঘন করছে বলে ওয়াশিংটনের পক্ষ থেকে বেশ পুরোনো অভিযোগ রয়েছে। এ বিষয়ে চীনের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন।

যৌথ সামরিক মহড়ায় অংশ নিতে রাশিয়া থেকে সুখোই-৩০ এসএম যুদ্ধবিমান, স্বয়ংক্রিয় রাইফেল ইউনিট, আকাশ প্রতিরক্ষাব্যবস্থা চীনে পাঠানো হয়েছে।