ঘুষ ও ভিসা বাণিজ্যের দায়ে কুয়েতে সাজাপ্রাপ্ত বাংলাদেশি সাবেক সংসদ সদস্য কাজী শহিদ ইসলাম পাপুলসহ অন্য আসামিদের আটকাদেশ তুলে নিতে অনুরোধ করেছিল আসামিপক্ষের ডিফেন্স টিম। সেই অনুরোধ প্রত্যাখ্যান করেছেন দেশটির কোর্ট অব ক্যাসেশন।

রোববার স্থানীয় সংবাদমাধ্যম আল-রাই প্রতিদিনের বরাত দিয়ে এ খবর জানিয়েছে আরবটাইমস। তবে দৈনিকটি এর বেশি কিছু জানাতে পারেনি।

এর আগে গত ২৭ জুলাই স্থানীয় দৈনিক আল কাবাসে বলা হয়, কুয়েতে বাংলাদেশি সাবেক সংসদ সদস্য পাপুলসহ মানিলন্ডারিং মামলায়  অভিযুক্তদের বিচার ৫ অক্টোবর পর্যন্ত স্থগিত করা হয়েছে। এতে আরও বলা হয়, ফৌজদারি আদালত মানিলন্ডারিং মামলাটি আগামী ৫ অক্টোবর পর্যন্ত  অধিবেশন স্থগিত করেছে। যেখানে কুয়েত স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সাবেক সহকারী আন্ডার সেক্রেটারি মাজেন আল-জাররাহ এবং নওয়াফ আল-শালাহী অভিযুক্ত।

আরব টাইমসের খবরে বলা হয়, পাপুলের মামলার আপিল প্রত্যাখান হতে পারে কুয়েত আদালতে।

লক্ষ্মীপুর-২ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য কাজী শহিদ ইসলাম পাপুলের মামলার ‘পয়েন্ট অব ভিউ’ তৈরি করেছেন কুয়েতের আদালত। কুয়েত আদালতের ক্যাসেশন প্রসিকিউশন প্যানেলের ওই ‘পয়েন্ট অব ভিউ’তে বিবাদীদের আপিল প্রত্যাখানের কথা উল্লেখ করা হয়েছিল।