আফগানিস্তানে দুই দশক পর ক্ষমতায় ফেরা তালেবান আশ্বাস দিয়েছে ইসলামি আইন (শরিয়া) মেনে নারীদের কাজের সুযোগ দেওয়া হবে। কিন্তু আফগান নারীরা রাজনীতিতে অংশ নেওয়ার সুযোগ পাবেন কি না তা নিয়ে সম্প্রতি একটি পুরনো ভিডিও ভাইরাল হয়েছে নেটমাধ্যমে।

আফগানিস্তানে নারী রাজনীতিকদের ভবিষ্যৎ নিয়ে তালেবান যোদ্ধাদের প্রশ্ন করেছিলেন এক নারী সাংবাদিক। সেই প্রশ্ন শুনে তালেবান যোদ্ধারা হাসতে শুরু করেন। খবর আনন্দবাজার পত্রিকার

‘ভাইস নিউজ’ নামে এক সংবাদমাধ্যম চলতি বছরের শুরুর দিকে একটি তথ্যচিত্র তৈরি করেছিল। এই ভিডিওটি সেই তথ্যচিত্রেরই একটি অংশ। সেই ভিডিওতে দেখা গেছে, হিন্দ হাসান নামের এক সাংবাদিক বোরখা পরে বেশ কয়েকজন তালিবান যোদ্ধার সাক্ষাৎকার নিচ্ছেন। সেখানে তালেবান যোদ্ধারা বলছেন, খুব শীগগির আফগানিস্তান তালেবান প্রেসিডেন্ট পাবে। নারীদের অধিকার নিয়ে প্রশ্নেরও ইতিবাচক উত্তর দিয়েছেন ওই যোদ্ধারা। এর পরই হিন্দ প্রশ্ন করেন, আফগান নাগরিকরা নারী রাজনীতিকদেরও ভোট দিতে পারবে কি?

এই প্রশ্ন শুনে হাসি চেপে রাখতে পারেননি ওই তালেবান যোদ্ধারা। উচ্চস্বরে হাসতে থাকেন তারা। তারপর ওই নারী সাংবাদিককে ভিডিও করা বন্ধ করতে বলেন এবং তারপর বন্ধ করে দেওয়া হয় ক্যামেরা।

মঙ্গলবার বেশ কয়েকজন সাংবাদিক নিজেদের টুইটার থেকে শেয়ার করেছেন ওই ভিডিও।