রাজধানী কাবুল দখলের পর আফগানিস্তান নিয়ন্ত্রণে নেওয়ার ঘোষণা দেওয়া তালেবানের শাসনকে ‘অগণতান্ত্রিক, অবৈধ ও অসাংবিধানিক’ বলে মন্তব্য করা হয়েছে ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম দ্য ডেইলি গার্ডিয়ানের এক নিবন্ধে।

সোমবার এই নিবন্ধটি প্রকাশিত হয়। এতে তালেবান, আফগানিস্তান, ক্ষমতার রদবদলের প্রেক্ষাপট ও দেশটি ভবিষ্যত নিয়ে নানা প্রসঙ্গও উঠে এসেছে।

‘তালেবান শাসন অগণতান্ত্রিক, অবৈধ ও অসাংবিধানিক’ শীর্ষক নিবন্ধে বলা হয়, বিশ্ব নেতৃবৃন্দকে অবশ্যই ভাবতে হবে, তালেবানই শুধুমাত্র আফগানিস্তানের ক্ষমতায় বসার চেষ্টা করেনি, এমন আরও অনেক পক্ষ ক্ষমতায় যেতে যুদ্ধ করে আসছে। এরই মধ্যে পাকিস্তান ও তুরস্কসহ বেশ কিছু দেশ তালেবানকে স্বীকৃতি দিতে যাচ্ছে। তালেবান সরকারকে উৎখাত করে ক্ষমতা দখল করেছে, তারা এখনও গণতান্ত্রিক ভিত্তিতে তাদের সরকার গঠন করতে পারেনি।

এতে বলা হয়, দেশটির প্রেসিডেন্ট পালিয়ে গেছেন। ভাইস প্রেসিডেন্ট অবশ্য দেশে আছেন এবং এখন ক্ষমতার বৈধ দাবিদার। যদি তালেবান ক্ষমতা গ্রহণ করতে চায়, তাহলে তাদের এটা নিতে হবে ভাইস প্রেসিডেন্টের হাত থেকে, যিনি ইতিমধ্যেই দাবি করেছেন যে তিনি সিংহাসনের বৈধ উত্তরাধিকারী। তার দাবি সত্য এবং সাংবিধানিক।

নিবন্ধে বলা হয়, যারা আফগানিস্তানে তালেবানের ক্ষমতায় বসাকে স্বীকৃতি দিতে চায় তারা একটি কাঠামোকে উৎসাহিত করছে যা অগণতান্ত্রিক এবং অসাংবিধানিক। বিশ্ব সম্প্রদায় যদি আফগানিস্তানে প্রকৃত শান্তি ও স্থিতিশীলতা চায়, তাহলে তাদের অবশ্যই দেশের সব গোষ্ঠীর সঙ্গে আলোচনার উদ্যোগ নিতে হবে।

দেশটির অনেক স্থান থেকেই নারীর প্রতি সহিংসতার খবর আসছে। অনেক স্থানে স্কুলে যেতে বাধা দেওয়া হচ্ছে তাদের। জোর করে অপ্রাপ্তবয়ষ্ক নারীদের বিয়ের খবরও পাওয়া যাচ্ছে। যা নিয়ে উৎকণ্ঠা দেখা দিয়েছে বলে নিবন্ধে উল্লেখ করা হয়।

নিবন্ধে বলা হয়, অসংখ্য প্রতিবেদনে বলা হচ্ছে- তালেবান কাবুল দখল করার পর চীন, বাংলাদেশ, ভারত এবং পাকিস্তান থেকে অনেক তরুণ তালেবানে যোগ দিয়েছে। আফগানিস্তানে সোভিয়েত ইউনিয়নের উপস্থিতির সময়ও এমন ঘটনা ঘটেছিল।

এদিকে বেশ কিছু গোষ্ঠী তালেবানের বিপক্ষে অবস্থান নিয়ে আফগানিস্তানের কয়েকটি প্রদেশ দখল করে নিয়েছে। শিগগিরই কাবুল থেকে এসব প্রদেশ বিচ্ছিন্ন হয়ে যেতে পারে বলে জঙ্গি গোষ্ঠীর ওপর নজর রাখা কয়েকটি সংস্থার বরাত দিয়ে নিবন্ধে উল্লেখ করা হয়েছে।

গত সপ্তাহে কাবুল দখল করার পর ক্ষমতায় বসার ঘোষণা দেয় তালেবান। পালিয়ে গেছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনি। এমন পরিস্থিতিতে ২০ বছর আগের মতো নয় বরং নতুন করে শাসন ব্যবস্থা চালু করার কথা বলেছে তালেবান। তবে বিশ্বজুড়ে আফগান রাজনীতি নিয়ে উৎকণ্ঠা রয়েই গেছে।

এই শিক্ষা সংকটের শিক্ষা বিপর্যয়ে পরিণত হওয়া ঠেকাতে ইউনিসেফ আগামী কয়েক সপ্তাহে তার সহযোগী ও জনসাধারণে একত্রিত করার কাজ অব্যাহত রাখবে।