ময়মনসিংহে ছুটিতে থাকা এক নারী পুলিশ সদস্যকে কুপিয়ে গুরুতর জখম করেছে স্থানীয় প্রতিপক্ষ। হাসপাতালে তার চিকিৎসা চলছে। এ ঘটনায় পুলিশ চার অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করে  রোববার আদালতে সোপর্দ করেছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, সদর উপজেলার সিরতা ইউনিয়নের চর ভবানীপুর গ্রামে দীর্ঘদিন ধরে জমিজমা নিয়ে আলী আকবর এবং আজিজুল হকের পরিবারের মধ্যে বিরোধ চলছে। এ ঘটনায় একাধিক মামলাও চলছে। শনিবার বিকেলে স্থানীয়ভাবে বিরোধ মীমাংসার কথা থাকলেও আজিজুল হকের লোকজন না এসে উল্টো রাস্তায় গাছ দিয়ে ব্যারিকেড সৃষ্টি করে।

এ নিয়ে বাগ্‌বিতণ্ডার এক পর্যায়ে আজিজুলরা দেশীয় অস্ত্র নিয়ে আলী আকবরের পরিবারের ওপর হামলা করে। এ সময় আলী আকবরের বোন পুলিশ সদস্য সুমাইয়া খাতুন তার শিশু বাচ্চাকে নিয়ে বারান্দায় বসে ছিলেন। প্রতিপক্ষ তার মাথায় রামদা দিয়ে কোপ দিলে তিনি অজ্ঞান হয়ে পড়েন।

স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। ঢাকা জেলা পুলিশ সুপার কার্যালয়ের কন্ট্রোল রুমে কর্মরত সুমাইয়া মাতৃত্বকালীন ছুটিতে বাড়িতে অবস্থান করছিলেন।

এ ঘটনায় আলী আকবর বাদী হয়ে ১৬ জনের নাম উল্লেখ করে আরও কয়েকজনকে অজ্ঞাত আসামি করে ময়মনসিংহ কোতোয়ালি থানায় একটি মামলা করেছেন। পুলিশ শনিবার রাতভর অভিযান চালিয়ে প্রধান অভিযুক্ত আজিজুল হক, সারোয়ার, আবুল কালাম ও মঞ্জু মিয়াকে গ্রেপ্তার করে। কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি শাহ কামাল আকন্দ বলেন, বাকি আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।