রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন বলেছেন, আফগানিস্তানের বর্তমান পরিস্থিতি সহজ নেই। যুদ্ধবিধ্বস্ত ইরাক ও সিরিয়া থেকে সন্ত্রাসীরা 'সক্রিয়ভাবে' আফগানিস্তানে ঢুকছে। আফগানিস্তানে মানবিক সংকট আরও গভীর হচ্ছে বলে মন্তব্য করেছে জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থা (ইউএনএইচসিআর)।

এদিকে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক, সহায়তা, বিমান পরিবহন এবং বাণিজ্য ইস্যুতে তুরস্কের সঙ্গে আলোচনা করতে আঙ্কারায় গিয়েছে আফগানিস্তানের তালেবান সরকারের প্রতিনিধি দল। আফগানিস্তানের পূর্বাঞ্চলীয় কুনার প্রদেশে বোমা বিস্ফোরণে তালেবানের এক কমান্ডার নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন ১১ জন। খবর এএফপি, আলজাজিরা ও বিবিসির।

বুধবার নিরাপত্তা বিভাগের প্রধানদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে পুতিন বলেন, আফগানিস্তানে যুক্তরাষ্ট্রের আগ্রাসনের ফল মর্মান্তিক হয়েছে। দেশটি এখন প্রতিবেশী দেশগুলোর জন্য হুমকিস্বরূপ। কাবুলের রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতার সুযোগ নিয়ে পার্শ্ববর্তী দেশগুলো থেকে সন্ত্রাসীরা আফগানিস্তানে ঢুকছে। এই সন্ত্রাসীরা যে কোনো সময় সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নভুক্ত প্রতিবেশী দেশগুলোয় শরণার্থী হিসেবে ঢুকতে পারে। পুতিনের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে অংশ নিয়েছিলেন তাজিকিস্তানের জাতীয় নিরাপত্তাবিষয়ক প্রধান সাইমুমিন ইয়াতিমভ। তিনি বলেন, আফগানিস্তান থেকে তার দেশে মাদক, অস্ত্র ও গোলাবারুদ চোরাচালানের জোর প্রচেষ্টা চালানোর খবর পেয়েছেন তিনি।

বুধবার ইউএনএইচসিআর জানিয়েছে, আফগানিস্তানে মানবিক সংকট ক্রমেই খারাপ হচ্ছে। অন্তত দুই কোটি মানুষের এখনই সাহায্য প্রয়োজন। তীব্র খরা এবং চাষে ব্যাঘাতের সঙ্গে সামনে শীত ঘনিয়ে আসায় দেশটিতে খাদ্য নিরাপত্তাহীনতার ঝুঁকি বেড়েছে।

সংস্থাটির মুখপাত্র বাবর বালুচ জানান, তারা আফগানিস্তানের সীমানার বাইরে একটি লজিস্টিক হাব প্রতিষ্ঠার চেষ্টা করছে, যেখান থেকে বাস্তুহারা মানুষকে সাহায্য করা হবে।

আফগানিস্তানের নতুন সরকারকে সমর্থন এবং স্বীকৃতির আহ্বান জানাতে তুরস্কে অবস্থান করছে তালেবান সরকারের প্রতিনিধি দল। দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আব্দুল কাহার বলখি এ তথ্য জানিয়েছেন। এবারের সফরে আফগানিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আমির খান মুত্তাকি এবং অন্য মন্ত্রীরা তুরস্কের উচ্চপর্যায়ের প্রতিনিধিদের সঙ্গে সহায়তা, অভিবাসন, বিমান পরিবহন বাণিজ্যসহ পারস্পরিক স্বার্থ-সংশ্নিষ্ট বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা করবেন।

আফগানিস্তানে বৃহস্পতিবার বোমা বিস্ম্ফোরণে তালেবানের এক কমান্ডার নিহত হয়েছেন। তালেবানের এক কর্মকর্তা বলেন, 'তালেবানের ওই কমান্ডার প্রদেশের শিগাল জেলার পুলিশপ্রধান ছিলেন। তাকে লক্ষ্য করেই হামলাটি হয়েছে।' এখন পর্যন্ত বোমা হামলার দায় কেউ স্বীকার করেনি।