আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলের সামরিক হাসপাতাল সরদার মোহাম্মদ দাউদ খান হাসপাতালে পরপর দুটি বিস্ফোরণে অন্তত ২০ জন হয়েছেন, গুরুতর আহত হয়েছেন ৫০ জন।

আফগানিস্তানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা এএফপি ও ওয়াশিংটন পোস্ট মঙ্গলবার বিকেলে এ খবর জানিয়েছে। হাসপাতালের প্রবেশদ্বারে এই বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে।

সরদার মোহাম্মদ দাউদ খান হাসপাতালের এক চিকিৎসক এএফপিকে বলেন, ‘আমি বিস্ফোরণের সময় হাসপাতালেই ছিলাম। আমি বিকট শব্দে বিস্ফোরণের শব্দ শুনতে পেলাম। বিস্ফোরণটি হাসপাতালে ঢোকার প্রথম গেইটের কাছেই হয়েছে। ওই সময় গোলাগুলির আওয়াজও আমি শুনেছি। আমি এখনও গোলাগুলির শব্দ শুনছি। আমার মনে হচ্ছে, আক্রমনকারীরা হাসপাতালের এক কক্ষ থেকে আরেক কক্ষে যাচ্ছে।’

তালেবান কাবুলের নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার পর থেকে মসজিদসহ আফগানিস্তানের বিভিন্ন লক্ষ্যে ধারাবাহিক হামলা চালাচ্ছে আইএস। ২০১৭ সালে এই দাউদ খান হাসপাতালে তারা সুপরিকল্পিত একটি হামলা চালিয়ে ৩০ জনেরও বেশি লোককে হত্যা করেছিল।

আফগানিস্তানের অভ্যন্তরীণ মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ক্বারী সাইদ খোশতি এএফপিকে বলেন,তালেবানের স্পেশাল ফোর্সের সদস্যরা ইতোমধ্যে সরদার মোহাম্মদ দাউদ খান হাসপাতালে চলে গেছেন। বিস্ফোরণস্থলের চারিপাশ নিরাপদ রাখতে তারা কাজ করছে।

বিস্ফোরণস্থল থেকে তিন কিলোমিটার দূরে ইতালীয় ত্রাণ গোষ্ঠী ইর্মাজেন্সির একটি ট্রমা হাসপাতাল আছে। সেখানে এ পর্যন্ত নয় আহতকে নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে তারা। 

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে স্থানীয় বাসিন্দাদের শেয়ার করা ছবিতে কাবুলের কেন্দ্রস্থলের সাবেক কূটনৈতিক জোন ওয়াজির আকবার খান এলাকার কাছে ঘটনাস্থলের ওপরে ধোঁয়ার কুণ্ডুলি দেখা গেছে বলে রয়টার্স জানিয়েছে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, ওই এলাকার ওপর দিয়ে অন্তত দুইটি হেলিকপ্টার উড়ছে। 

কিন্তু আফগানিস্তানের রাষ্ট্রায়ত্ত বাখতার বার্তা সংস্থা এক প্রত্যক্ষদর্শীর উদ্ধৃতি দিয়ে জানিয়েছে, ইসলামিক স্টেটের (আইএস) বেশ কিছু সংখ্যক জঙ্গি হাসপাতালটিতে প্রবেশ করে নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়েছে।

তালেবান কাবুলের নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার পর থেকে মসজিদসহ আফগানিস্তানের বিভিন্ন লক্ষ্যে ধারাবাহিক হামলা চালাচ্ছে আইএস।