ফেসবুকে বারবার ঢুঁ মারায় নিশ্চিতভাবেই কর্মঘণ্টা নষ্ট হয়। অফিসের অধস্তনদের ক্ষেত্রে এটা যেমন সত্য, তেমনি বসরাও অনেক সময় ফেসবুকে সময় নষ্ট করেন। ফেসবুক আসক্তি এক সময় পেয়ে বসেছিল ডিভাইস কোম্পানি পাভলকের সিইও মনীষ শেঠিকেও। এটা থেকে পরিত্রাণ পেতে তিনি এক অভিনব পন্থা বেছে নেন। তিনি এক নারীকে ঘণ্টায় ৮ ডলার বেতনে নিয়োগ দেন, যার কাজ তার পাশে বসে থেকে তার ল্যাপটপে নজরদারি করা এবং তিনি ফেসবুক খুললেই তার গালে চড় বসিয়ে দেওয়া। যেমন কথা তেমনই কাজ করেছেন কারা নামের ওই নারী। প্রতিবার ফেসবুক খোলার সঙ্গে সঙ্গে একটি চড় দিয়েছেন বসের গালে।

মনীষ শেঠি চেয়েছিলেন কাজের সময় ফেসবুকে যাতে তার সময় নষ্ট না হয়। ফেসবুক তার উৎপাদনশীলতা কমিয়ে দিয়েছিল। এটা ২০১২ সালের ঘটনা হলেও সম্প্রতি বিষয়টি প্রকাশ্যে এসেছে। তিনি ফেসবুকে লিখেছেন, তার এই উদ্যোগ দারুণ ফল দেয়। এভাবে বারবার চড় খেয়ে তার ফেসবুক আসক্তি কেটে যায় এবং উৎপাদনশীলতা বেড়ে যায় ৯৮ শতাংশ।

সম্প্রতি মনীষ শেঠিকে ওই নারীর চড় দেওয়ার একটি ছবি টুইটারে ছড়িয়ে পড়েছে। এই ছবি দেখে বিস্ময়ানুভূতি প্রকাশ করেছেন টেসলা ও স্পেসএক্সের সিইও এলন মাস্ক। কারণ বিশ্বের সবচেয়ে ধনী এই মানুষটিরও উৎপাদনশীলতা নিয়ে কিছু পরামর্শ রয়েছে। এর অন্যতম হচ্ছে বারবার মিটিং না করা। কারণ বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই মিটিং তেমন কার্যকর নয়। তবে অপরিহার্য হলে সেটা ভিন্ন কথা। তিনি আরও পরামর্শ দিয়েছেন, মিটিংয়ে আপনার উপস্থিতি জরুরি না হলে দ্রুত বিদায় নিন। এটা কোনো অভদ্রতা নয়। বরং প্রয়োজন ছাড়া বৈঠকে বসে থাকাটাকে এলন মাস্ক নির্মম মনে করেন। সূত্র: এনডিটিভি।