অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে কক্সবাজারের টেকনাফ থানার সাবেক ওসি প্রদীপ কুমার দাশ ও তার স্ত্রী চুমকি কারণের বিরুদ্ধে  দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) করা মামলার অভিযোগ গঠনের শুনানি পিছিয়েছে।

সোমবার চট্টগ্রাম বিভাগীয় বিশেষ জজ আদালতের বিচারক মুনসী আবদুল মজিদের আদালতে অভিযোগ গঠনের মাধ্যমে এ মামলার বিচার শুরুর দিন ধার্য ছিল।

দুদকের আইনজীবী মাহমুদুল হক গণমাধ্যমকে জানান, গত ১ সেপ্টেম্বর প্রদীপ ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র গ্রহণ করেন আদালত। আজ অভিযোগ গঠনের মাধ্যমে এ মামলার বিচার শুরুর দিন ধার্য ছিল। তবে আসামিপক্ষ সময় চেয়ে আবেদন করলে আদালত তা মঞ্জুর করেন। একই সঙ্গে আসামির পক্ষ থেকে জামিন চেয়ে আবেদন করা হলে আদালত শুনানির জন্য আগামী ৬ ডিসেম্বর পরবর্তী দিন ধার্য করেন।

এর আগে গত ২৬ জুলাই দুদকের চট্টগ্রাম জেলা সমন্বিত কার্যালয়-২-এর উপ-সহকারী পরিচালক মো. রিয়াজ উদ্দিন আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। ১৩ পৃষ্ঠার অভিযোগপত্রে শুধু দু'জন আসামি হিসেবে আছেন। তারা হলেন- প্রদীপ ও তার স্ত্রী চুমকি কারণ। এতে সাক্ষী করা হয় ২৯ জনকে। গত বছরের ২৩ আগস্ট দুদক কর্মকর্তা রিয়াজ উদ্দিন দুদকের চট্টগ্রাম জেলা সমন্বিত কার্যালয়-১-এ মামলাটি করেন। মামলায় প্রদীপ ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে প্রায় চার কোটি টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ আনা হয়।

চট্টগ্রাম নগরের কোতোয়ালি থানার পাথরঘাটা আর সি চার্চ রোডে তাদের নিজস্ব একটি আবাসিক ভবন আছে। সেই ভবনে প্রদীপের স্ত্রী সন্তানদের নিয়ে বাস করতেন। তবে প্রদীপের সম্পদ নিয়ে দুদকের অনুসন্ধান শুরুর পর থেকে স্ত্রী পলাতক।