ত্রিপুরায় পৌরসভা নির্বাচনে বিপুল ভোটে জয়ী হয়েছে গেরুয়া শিবির। রোববার নির্বাচনের ফল ঘোষণা করা হয়েছে। মোট ৩৩৪টি আসনের মধ্যে ৩২৯টিতে জিতেছে ক্ষমতাসীন দল বিজেপি। এর মধ্যে ১১২টি আসনে অন্য কোনো দল প্রার্থী না দেওয়ায় সেই আসনগুলোয় বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জিতে গেছে দলটি।

এদিকে অনেক কেন্দ্রেই দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে তৃণমূল। তাতেই ভোটের ফল ঘোষণার পরই টুইটারে ‘খেলা সবে শুরু’ বলে বার্তা দিলেন তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। খবর পিটিআইয়ের।

ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেব দিনটিকে ঐতিহাসিক বলে আখ্যা দেন। তিনি বলেন, ত্রিপুরাবাসীকে ধন্যবাদ জানাই। রাজ্যের সংস্কৃতি, ঐতিহ্যকে যেভাবে পদদলিত করা হচ্ছিল, তারই উত্তর দিয়েছেন ত্রিপুরাবাসী।

ত্রিপুরায় ২২২টি আসনে ভোট হয়। তার মধ্যে ধর্মনগরে ২৫টি আসনের মধ্যে সবক'টিতেই জয়ী বিজেপি। পানিসাগরে ১২টি আসনে জিতেছে বিজেপি। একটি পেয়েছে সিপিএম। কুমারঘাটে ১৫টি আসনেই জিতেছে বিজেপি। আমবাসায় ১৫টি আসনের মধ্যে ১২টিতে বিজেপি, তৃণমূল, সিপিএম এবং ত্রিপুরামোথা একটি করে আসন জিতেছে। এ ছাড়া তেলিয়ামুড়ায় ১৫ আসন, সোনামুড়ায় ১৩, অমরপুরে ১৩ ও বিলোনিয়ায় ১৩ আসনের সবক'টিতে জয়ী হয়েছে গেরুয়া শিবির।

এদিকে এ রাজ্যের আগামী বিধানসভা নির্বাচন সামনে রেখে শাসক দলকে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে টুইটারে অভিষেক লিখলেন, 'সবে তো খেলা শুরু, এবার আসল খেলা হবে।' একটি আসনে তৃণমূল জেতার পরই ত্রিপুরার দলীয় কর্মীদের মনোবল বাড়াতে টুইটারে অভিষেকের বার্তা, 'অত্যন্ত সামান্য উপস্থিতি থেকে একটি দলের পক্ষে পুরভোটে সফলভাবে নির্বাচনে লড়া এবং ২০ শতাংশের বেশি ভোট পেয়ে প্রধান বিরোধীর ভূমিকায় উঠে আসা সত্যিই অভূতপূর্ব ব্যাপার।'

হামলা, মামলা, তাণ্ডব করে ত্রিপুরায় পৌরভোট হয়েছে বলে টুইটারে দাবি করেছেন পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূলের রাজ্য সাধারণ সম্পাদক কুনাল ঘোষ। টুইটে তিনি লিখেছেন, ত্রিপুরায় তৃণমূলের দু'মাসের সংগঠনকে ঠেকাতে এত হামলা, মামলা এবং তাণ্ডব চালানো হয়েছে। তার পরও বহু ওয়ার্ডে দ্বিতীয় হয়েছে তৃণমূল। আমবাসা ওয়ার্ডে জিতেছে দল। দলের লড়াই আর মানুষের সমর্থনকে ধন্যবাদ।