টাঙ্গাইলের ঘাটাইলে স্ত্রীকে হত্যার অভিযোগে আব্দুল আলীম নামের এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। শনিবার রাতে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তার আব্দুল আলীম উপজেলার ছয়ানী বকশিয়া গ্রামের আলাল তালুকদারের ছেলে।

নিহতের মায়ের দাবি, পরিকল্পিতভাবে তার মেয়েকে হত্যার পর হাত পায়ে মোজা এবং বোরখা পরে পালাতে চেয়েছিলেন আলীম।

এর আগে শনিবার রাতে শ্বশুরবাড়ি থেকে নুসরাত জাহান নিশি (১৯) নামের ওই গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় রাতেই নিহতের বাবা খোরশেদ আলম বাদী হয়ে থানায় মামলা করলে পুলিশ আলীমকে গ্রেপ্তার করে থানায় নিয়ে আসে।

মারা যাওয়া নুসরাত গোপালপুর উপজেলার কুরমোশিয়া গ্রামের খোরশেদ আলমের মেয়ে এবং উপজেলার ছয়ানী বকশিয়া গ্রামের আব্দুল আলীমের স্ত্রী।

মারা যাওয়া নুসরাতে পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, প্রায় বছরখানেক আগে বেকার আব্দুল আলীমের সঙ্গে নুসরাত জাহান নিশির পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। বিয়ের সময় ১ লাখ ৩৫ হাজার টাকা যৌতুক নিয়ে ছিলেন আলীম। তারপরও বাবার বাড়ি থেকে টাকার নিয়ে আসার জন্য নুসরাতকে চাপ দিতেন আলীম। এ নিয়ে স্বামী স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া লেগেই থাকত। টাকা নিয়ে আসতে অস্বীকৃতি জানালে নিশির ওপর অমানবিক শারীরিক নির্যাতন চলত।
 
নুসরাতের মা সুফিয়া বেগম বলেন,আমার মেয়ে এইচএসসি পরীক্ষার্থী ছিল। শনিবার রাতে সে ফোন করে জানায় তাকে আর লেখাপড়া করতে দিবে না তার স্বামী। এজন্য তার স্বামী পরীক্ষার প্রবেশপত্র ছিঁড়ে ফেলেছে। মেয়ে আমার লাশ হয়ে বাড়ি ফিরল।

ঘাটাইল থানার ওসি মো. আজহারুল ইসলাম সরকার বলেন, থানায় মামলা হয়েছে, লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য টাঙ্গাইল পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার আসামি আলীম ও তার বাবা মাকে গ্রেপ্তার করে জেলে পাঠানো হয়েছে। পরবর্তীতে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।