ভারতে ব্যাপকভাবে ওমিক্রনের বিস্তার ঘটছে। করোনার এ ভ্যারিয়েন্টের শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ২১ জনে দাঁড়িয়েছে। পরিস্থিতি মোকাবেলায় লোকজনকে অবশ্যই টিকা নিতে এগিয়ে আসতে হবে বলে সোমবার দেশটির কর্মকর্তারা মন্তব্য করেছেন। খবর রয়টার্সের।  

ভারতের পশ্চিমাঞ্চলীয় রাজ্য রাজস্থানে সবচেয়ে বেশি ৯ জন ওমিক্রন রোগী শনাক্ত হয়েছে, এরপর মহারাষ্ট্রে ৮ জন, কর্নাটকে ২ জন এবং গুজরাট ও রাজধানী নয়া দিল্লিতে ১ জন করে শনাক্ত হয়েছে।

দিল্লির স্বাস্থ্যমন্ত্রী সত্যেন্দ্র জৈন টুইটারে বলেছেন, 'দিল্লির মানুষদের অব্যশই পূর্ণ টিকা নিতে হবে, মাস্ক পরতে হবে এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে।' 

তিনি আরও বলেন, নগরীটির প্রথম ওমিক্রন রোগীকে সরকারি একটি হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে আর দিল্লির প্রাপ্তবয়স্ক বাসিন্দাদের প্রায় ৯৪ শতাংশ টিকার অন্তত একটি ডোজ নিয়েছেন।

ভারতের ৯৪ কোটি ৪০ লাখ পূর্ণবয়স্ক জনসংখ্যার ৫১ শতাংশ কোভিড টিকার দুটি ডোজই নিয়েছে এবং ৮৫ শতাংশ অন্তত একটি ডোজ নিয়েছে বলে দেশটির কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে।

তবে সরকারি তথ্য থেকে দেখা গেছে, পর্যাপ্ত টিকার সরবরাহ থাকলেও লাখ লাখ লোকের দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার সময় পার হয়ে গেছে।

তবে দেশটিতে শনাক্ত হওয়া অধিকাংশ ওমিক্রন রোগীই সম্প্রতি বিদেশ থেকে ফিরেছিলেন। তারপরও চিকিৎসকরা বলছেন, বিদেশ ফেরতদের পাশাপাশি করোনাভাইরাসের এই নতুন ধরনটি ইতোমধ্যেই স্থানীয় লোকজনের মধ্যে ছড়ানো শুরু করেছে।