ঢাকা শনিবার, ১৮ মে ২০২৪

হুথিদের ১৫ ড্রোন ধ্বংস করেছে যুক্তরাষ্ট্র-যুক্তরাজ্য

হুথিদের ১৫ ড্রোন ধ্বংস করেছে যুক্তরাষ্ট্র-যুক্তরাজ্য

ছবি: সংগৃহীত

সমকাল ডেস্ক

প্রকাশ: ১৮ ডিসেম্বর ২০২৩ | ০৬:০০

ইয়েমেনের বিদ্রোহী গোষ্ঠী হুথিদের নিক্ষেপ করা ১৫টি ড্রোন ধ্বংস করেছে যুক্তরাষ্ট্র-যুক্তরাজ্য। লোহিত সাগরের ওপর ব্রিটিশ ও মার্কিন যুদ্ধজাহাজগুলো এসব ড্রোন গুলি করে ভূপাতিত করে। এ ঘটনায় ইসরায়েল ও হামাসের মধ্যকার সংঘাত আঞ্চলিক সংঘাতে পরিণত হওয়ার শঙ্কা আরও প্রকট হয়েছে।

মার্কিন সামরিক বাহিনীর ইউএস সেন্ট্রাল কমান্ড (সেন্টকম) শনিবার বলেছে, লোহিত সাগরের ওপর ‘ইয়েমেনের হুথি-নিয়ন্ত্রিত অঞ্চল’ থেকে নিক্ষেপ করা বেশকিছু ড্রোনের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে এবং হামলা চালাতে আসা ১৫টি সন্দেহভাজন ড্রোনকে ভূপাতিত করা হয়েছে। এসব উৎক্ষেপণকে ‘একমুখী আক্রমণকারী ড্রোন’ হিসেবে বর্ণনা করে তারা বলেছে, ওই এলাকায় জাহাজের কোনো ক্ষতি বা কারও আহত হওয়ার খবর ছাড়াই সেসব ড্রোন গুলি করে নামানো হয়েছিল। অন্যদিকে যুক্তরাজ্যের প্রতিরক্ষামন্ত্রী গ্রান্ট শ্যাপস বলেছেন, ব্রিটিশ রয়্যাল নেভি ডেস্ট্রয়ার এইচএমএস ডায়মন্ড একটি সি ভাইপার ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করেছে এবং বাণিজ্যিক একটি জাহাজে হামলা চালাতে আসা ড্রোন ধ্বংস করেছে।

হুথি গোষ্ঠী বলেছে, তারা শনিবার একঝাঁক ড্রোন দিয়ে ইসরায়েলের ইলাত শহরে আক্রমণ করেছে। হুথি গোষ্ঠীর মুখপাত্র ইয়াহিয়া সারিয়া ইসরায়েলের লোহিত সাগরের তীরবর্তী এই শহরটি ‘অধিকৃত দক্ষিণ ফিলিস্তিন’ হিসেবে উল্লেখ করেছেন। মূলত গাজায় ইসরায়েলি আগ্রাসনের মধ্যেই ইরান-সমর্থিত এই সশস্ত্র গোষ্ঠীর হুঁশিয়ারি আঞ্চলিক সংঘাতের ঝুঁকিকে আরও বাড়িয়ে তুলেছে।
এদিকে লোহিত সাগরপথে সৃষ্ট নতুন এ সংকটের জেরে ইসরায়েল-হামাস যুদ্ধ নতুন মোড় নেওয়ার পাশাপাশি বিশ্ব অর্থনীতিতেও প্রভাব পড়তে পারে। ১৫ ডিসেম্বরের পর বিশ্বের পাঁচটি বড় কনটেইনারবাহী কোম্পানির মধ্যে চারটিই লোহিত সাগরে জাহাজ চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে। সুয়েজ খাল থেকে যে জাহাজগুলো আসে, সেগুলোকে এ পথেই চলতে হয়। ইয়েমেনের ইরান-সমর্থিত হুথি বিদ্রোহীরা লোহিত সাগরে জাহাজে হামলা করায় এমন পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে।

হুথিরা আধুনিক সমরাস্ত্র নিয়ে হামলা চালাচ্ছে। এ হামলায় বিশ্বের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ এই বাণিজ্যপথ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় যুক্তরাষ্ট্র ও তার সহযোগীরা মধ্যপ্রাচ্যে নৌ তৎপরতা বৃদ্ধি করছে। এমনকি বাণিজ্যপথ বিপদমুক্ত করতে তারা হুতি বিদ্রোহীদের ওপর হামলাও করতে পারে।

আফ্রিকা ও আরব উপদ্বীপের মধ্য দিয়ে বয়ে চলা বাব-এল-মান্দেব প্রণালিতে বৈশ্বিক বাণিজ্যের প্রায় ১২ শতাংশ ও কনটেইনার ট্রাফিকের ৩০ শতাংশ অতিক্রম করে। কিন্তু সম্প্রতি বিদ্রোহীদের আক্রমণের কারণে এ পথ বিপজ্জনক হয়ে উঠেছে। দৃশ্যত, গাজার সমর্থনে হুথি বিদ্রোহীরা এ আক্রমণ চালাচ্ছে, সম্প্রতি যা অনেকটাই বেড়েছে। খবর আলজাজিরা ও দ্য ইকোনমিস্টের।

আরও পড়ুন

×