জার্মানি তাদের শেষ ছয়টি পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের মধ্যে তিনটিই বন্ধ করে দিয়েছে। শুধু এই নয়, নবায়নযোগ্য জ্বালানির দিকে ঝুঁকতে থাকা দেশটি অবশেষে পারমাণবিক শক্তি থেকে পুরোপুরি সরে আসারও সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

২০১১ সালে জাপানের ফুকুশিমা পারমাণবিক প্রকল্পে দুর্ঘটনার পর তাদের এ সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের গতি বেড়ে যায়। ভূমিকম্প ও এরপর হওয়া সুনামিতে জাপানের উপকূলীয় ওই প্রকল্পটি ধ্বংস হয়ে যায়। খবর রয়টার্সের

১৯৮৬ সালের চেরনোবিলের পর ফুকুশিমার দুর্ঘটনা ছিল বিশ্বের সবচেয়ে মারাত্মক পারমাণবিক বিপর্যয়।

রয়টার্স জানিয়েছে, সাড়ে তিন দশক ধরে সচল থাকার পর শুক্রবার স্থানীয় সময় রাতে ব্রোকডর্ফ, গোনডা ও গুনথ্রামিংএন সি এর পারমাণবিক চুল্লিগুলো বন্ধ করে দেওয়া হয়।

শেষ তিনটি পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প, ইজা ২, এমসলান্ড ও নেখাভেস্টটাইম ২- ২০২২ সালের শেষে বন্ধ করে দেওয়া হবে।

ব্রোকডর্ফ ও গোনডা প্রকল্পের পরিচালক কোম্পানি পয়সেন ইলেকথা এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, এই দুটি প্রকল্প শুক্রবার মধ্যরাতের আগে বন্ধ করে দেওয়া হয়।

পরিচালক কোম্পানি অ্যাভেয়ি জানিয়েছে, গুনথ্রামিংএন সি প্রকল্পটিও শুক্রবার স্থানীয় সময় সন্ধ্যায় বন্ধ করে দেওয়া হয়।