ভারতের কর্ণাটকে হিজাব বিতর্কের মধ্যেই রাজ্যের কলেজ ও ডিপ্লোমা ইনস্টিটিউট আজ বুধবার থেকে খুলে দেওয়া হচ্ছে। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী বাসাভারা বোম্মাই কলেজ খোলার আহ্বান জানানোর পর এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। উচ্চ শিক্ষামন্ত্রী সিএন অশ্বত্থ নারায়ণ, সংখ্যালঘু কল্যাণমন্ত্রী শ্রীমন্ত পাতিল ও রাজস্বমন্ত্রী আর অশোকার সঙ্গে স্থানীয় সময় সোমবার সন্ধ্যায় এক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী এ আহ্বান জানান। এদিকে স্কুলে হিজাব পরতে না দেওয়ায় রাজ্যের উদুপি ও শিবমোগা জেলার কিছু ছাত্রী পরীক্ষায় অংশ নেননি বলে জানা গেছে। খবর এনডিটিভির।

উচ্চ শিক্ষামন্ত্রী অশ্বত্থ নারায়ণের কার্যালয় বলেছে, পোস্ট গ্র্যাজুয়েট ডিপ্লোমা ও অন্য সব কলেজ কাল থেকে খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। ওই বৈঠকে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী কলেজগুলো খোলার পর নিরাপত্তা নিশ্চিত করার নির্দেশনা দিয়েছেন।

আদালতের নির্দেশে মঙ্গলবার থেকে কর্ণাটকে সব স্কুল খুলে দেওয়া হয়েছে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া বিভিন্ন ভিডিওতে দেখা গেছে, স্কুল ক্যাম্পাসে ঢোকার আগে শিক্ষার্থীদের হিজাব খুলে ফেলতে বলা হয়েছে। এ পরিস্থিতিতে রাজ্যের উডুপি ও শিবমোগা জেলার কিছু ছাত্রী পরীক্ষায় অংশ নেননি। যারা হিজাব পরেন তাদের থেকে অন্য ছাত্রদের আলাদা কক্ষে বসানো হয়েছে বলে উডুপি জেলার একটি সরকারি স্কুলের এক অভিভাবক বলেন।
এদিকে অপর এক অভিভাবক বলেন, হিজাব খুলতে না চাওয়ায় তার মেয়েকে পুলিশ হুমকি দিয়েছে। তিনি বলেন, এ ধরনের ঘটনা আগে কখনও ঘটেনি। গতকাল আমাদের বাচ্চারা পৃথক কক্ষে বসেছে। শিক্ষকরা তাদের সঙ্গে চিৎকার করেছেন। স্কুল থেকে বলা হয়েছে, যারা হিজাব পরবে তারা ক্লাসে বসতে পারবে না। আক্ষেপের সঙ্গে তিনি বলেন, আমাদের বাচ্চারা হিজাব পরতে চায় ও পড়ালেখা করতে চায়। হিন্দু শিক্ষার্থীরা সিঁদুর পরে, খ্রিষ্টান শিক্ষার্থীরা জপমালা পরে, তবে আমাদের বাচ্চাদের দোষ কী?