করোনা সংক্রমণ কমে আসার পরিপ্রেক্ষিতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার পক্ষে মত জানিয়েছে কভিড-১৯ বিষয়ক জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটি।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে বুধবার রাত ১০টায় এই কমিটির সঙ্গে বৈঠকে বসে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। ভার্চুয়ালি এই বৈঠক হয়।  

বৈঠক শেষে বুধবার রাত ১১টার দিকে করোনাবিষয়ক জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির সভাপতি মোহাম্মদ সহিদুল্লা সাংবাদিকদের বলেছেন, এখন করোনা পরিস্থিতি অনেক উন্নতি হয়েছে। স্বাস্থ্যবিধি কঠোরভাবে মেনে এবং সকাল শিক্ষার্থীকে দুই ডোজ টিকা দিয়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া যেতে পারে। ১২ বছরের ওপরে যাদের বয়স তাদের ক্লাস শুরুর ব্যাপারে আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

তবে প্রাথমিকের শিক্ষার্থীদের বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়নি বলে সাংবাদিকদের জানান তিনি।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা এম এ খায়ের জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা সংক্রান্ত  বিষয়ে ব্রিফ করবেন শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে এই ব্রিফিং হবে। 

এর আগে গত ১৩ ফেব্রুয়ারি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে ইঙ্গিত দিয়েছিলেন। 

তিনি জানিয়েছিলেন, করোনাভাইরাসের নতুন ভেরিয়েন্ট ওমিক্রনের সংক্রমণের মাত্রা কমে আসছে। চলতি মাসের শেষদিকে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান আবারও খুলে দেওয়া হতে পারে। 

করোনা সংক্রমণ রোধে গত ১৩ জানুয়ারি থেকে ১১ দফা বিধিনিষেধ আরোপ করে সরকার। ২১ জানুয়ারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধসহ নতুন করে পাঁচ দফা নির্দেশনা দেয় মন্ত্রিপিরষদ বিভাগ। তাতে আগামী ৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয়া হয়। এরপর আরও দুই সপ্তাহ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয় সরকার।