যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেছেন, ইউক্রেনে আক্রমণের ফলে যেসব প্রাণহানি ও ক্ষয়ক্ষতির ঘটনা ঘটবে তার জন্য একাই দায়ী থাকবে রাশিয়া। যুক্তরাষ্ট্র, তার মিত্র ও অংশীদাররা একসঙ্গে ও সিদ্ধান্তমূলক উপায়ে এর প্রতিক্রিয়া জানাবে। বিশ্ব রাশিয়াকে জবাবদিহিতার আওতায় আনবে।

বৃহস্পতিবার সকালে এক বিবৃতিতে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট এসব কথা বলেন। খবর বিবিসির।

এর আগে ইউক্রেনের দোনবাস অঞ্চলে ‘সামরিক অভিযানের’ ঘোষণা দিয়েছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন।

বাইডেন বলেন, ইউক্রেনের জনগণের সঙ্গে পুরো বিশ্বের প্রার্থনা রয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বলেন, প্রেসিডেন্ট পুতিন একটি পূর্বপরিকল্পিত যুদ্ধ বেছে নিয়েছেন যা বিপর্যয়কর প্রাণহানি এবং জন দুর্ভোগ নিয়ে আসবে।

বাইডেন জানান, তিনি হোয়াইট হাউস থেকে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করবেন এবং রাশিয়ার জন্য ‘আরও পরণতি’ ঘোষণার আগে জি৭ এর নেতাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন।

ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলে মস্কো সমর্থিত বিদ্রোহীদের দখলে থাকা দোনেৎস্ক ও লুহানস্কে ‘শান্তি রক্ষার জন্য’ সেনা পাঠানোর ঘোষণা দেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। এর আগে তিনি ইউক্রেন থেকে আলাদা হতে চাওয়া ওই অঞ্চল দুটিকে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দেন। 

রাশিয়ার এসব পদক্ষেপকে ‘আক্রমণের সূচনা’ হিসেবে দেখছে যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য। ইতোমধ্যে বেশ কয়েকটি দেশ রাশিয়াকে শায়েস্তা করতে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। 

এর আগে ইউক্রেনের সীমান্তে লাখেরও বেশি রুশ সেনা সমাবেশের কারণে পশ্বিমা বিশ্ব ধারণা করছিল মস্কো হয়তো কিয়েভে হামলা চালাবে। যদিও রাশিয়া এ দাবি প্রত্যাখ্যান করে আসছিল এতদিন। তবে পুতিনের ‘সামরিক অভিযানের’ ঘোষণা পশ্চিমাদের ধারণাকে সত্য হিসেবে প্রমাণ করতে যাচ্ছে।