ইউক্রেনে আক্রমণ শুরুর পর রাশিয়ার রাজধানী মস্কোর বাসিন্দারা যেন বড় ধরনের ধাক্কা খেয়েছেন। হতবিহ্বল আর বিভ্রান্তিতে পড়েছেন তারা। বৃহস্পতিবার সকালে এই বিভ্রান্তিতে পড়েন মস্কোবাসী। 

ইউক্রেনে সেনা আক্রমণ শুরুর খবর পৌঁছার পর থেকেই মস্কোবাসী একে অপরের সঙ্গে এই নিয়ে আলাপ-আলোচনা করছেন। তাদের কি করা উচিত, তারা কি খাবার না মার্কিন ডলার সংরক্ষণ করবেন। খবর বিবিসি অনলাইনের। 

এ ছাড়া মস্কোবাসীর মনে প্রশ্ন মস্কো শেয়ার বাজারে লেনদেন বন্ধ হওয়ার পর কী হবে। রাজধানীর ব্যাংকগুলো এবং  মুদ্রা বিনিময়ের স্থানগুলোতে উপচে পড়া ভিড় লেগে গেছে। রাস্তাঘাটে পুলিশের উপস্থিতি বাড়ানো হয়েছে। 

এ দিকে মস্কোর বাসিন্দাদের মধ্যে যারা ইউক্রেন যুদ্ধের বিরুদ্ধে আছেন সন্ধ্যায় রাজধানীতে তাদের সমাবেশ করার সম্ভাবনা রয়েছে। যদিও এই ধরনের সমাবেশের অনুমতি দেবে দেশটির কর্তৃপক্ষ।  গত কয়েকদিন ধরে যারা ব্যক্তিগতভাবে পিকেটিং করছিলেন তাদের পুলিশ আটক করেছে।  

হামলা চালানোর আগে একটি জরিপে দেখা গিয়েছিল, রাশিয়ার অর্ধেক মানুষ ইউক্রেনে সঙ্গে যুদ্ধ সম্ভব নয় বলে মত দিয়েছিল। যারা জরিপে অংশ নিয়েছেন তাদের অধিকাংশই মনে করেন, ন্যাটো নিয়ে পশ্চিমাদের সঙ্গে রাশিয়ার এই উত্তেজনা।

এর আগে স্থানীয় সময় সকাল ৬টার আগে টেলিভিশনে দেওয়া আকস্মিক এক ভাষণে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ইউক্রেনের দোনবাস অঞ্চলে ‘সামরিক অভিযানের’ ঘোষণা দেন।