রাশিয়ার সেনাবাহিনী দাবি করেছে, মস্কো ও কিয়েভের মধ্যে চলমান আলোচনায় অগ্রগতি আনতে কিয়েভ ও চেরনিহিভে অভিযানের গতি উল্লেখযোগ্যভাবে কমিয়ে আনবে। 

রুশ উপপ্রতিরক্ষা মন্ত্রী আলেক্সান্ডার ফোমিন বলেন, এই সিদ্ধান্তের মানে হলো সংঘাত বন্ধের লক্ষ্যে এবং ‘অধিকতর আলোচনার পরিস্থিতি তৈরিতে’ চলমান আলোচনায় ‘আস্থা বাড়নো’। মঙ্গলবার এই খবর প্রকাশ করেছে কাতার ভিত্তিক আল-জাজিরা। 

এদিকে ইউক্রেনের সেনাবাহিনী বলেছে, কিয়েভ এবং চেরনিহিভের আশপাশ থেকে সেনা প্রত্যাহারের বিষয়টি তারা জানেন। এর আগে ইউক্রেন দাবি করেছিল, ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির কারণে কিয়েভ অঞ্চল থেকে রাশিয়া তার সেনাদের সরিয়ে নিচ্ছে।

প্রসঙ্গত, গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে রাশিয়া সামরিক অভিযান শুরু করে। ইউক্রেনে হামলার কারণে রাশিয়া ব্যাপক আন্তর্জাতিক প্রতিক্রিয়ার মুখে পড়ে। এই সামরিক অভিযানের প্রতিক্রিয়ায় ইউরোপীয়ান ইউনিয়ন (ইইউ), যুক্তরাষ্ট্র এবং যুক্তরাজ্যসহ বিভিন্ন দেশ মস্কোর ওপর কঠোর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে।