করোনাকালে বিশেষ অবদান রাখায় উইমেন অ্যান্ড চাইল্ড স্কিল ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশন কর্তৃক সম্মাননা পেয়েছেন জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউটের করোনা ইউনিটের ইনচার্জ ঝরনা বেগম। বাংলাদেশে করোনাভাইরাস শনাক্ত হওয়ার পর থেকে স্বাস্থ্য ঝুঁকি নিয়ে তিনি আক্রান্ত রোগীদের সেবা দেন। মুজিববর্ষ, মহান স্বাধীনতা দিবস ও নারী দিবস উপলক্ষে গত ১৯ মার্চ আয়োজিত এক আলোচনা, গুণীজন সম্মাননা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে তার হাতে সম্মাননা ক্রেস্ট তুলে দেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি পরিকল্পনা মন্ত্রী এম এ মান্নান।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি রওশন আরা মান্নান এমপি, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব কাজী জেবুন্নেসা বেগম, ঢাকা বিশ্বদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. হামিদা খানম, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব এ এইচ এম সফিকুজ্জামান এবং উইমেন অ্যান্ড চাইল্ড স্কিল ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান লায়ন আনোয়ারা বেগম নিপা।

সম্মাননা পদক পাওয়ার প্রতিক্রিয়ায় নার্সিং কমকর্তা ঝরনা বেগম বলেন, ‘দীর্ঘদিন ধরে নার্সিং পেশায় নিয়োজিত আছি। মহামারীর মতো সারাবিশ্বে এ রকম একটা পরিস্থিতি সৃষ্টি হবে, তা ভুল করেও ভাবিনি। মানবিক দুর্যোগে মানুষের সেবা করাই ছিল আমার লক্ষ্য। এ সময় নিজের বা পরিবারকে নিয়ে ভাবিনি। আমি চেয়েছি আমার করোনা ইউনিটে চিকিৎসা নিয়ে প্রতিটি মানুষ যেন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরতে পারেন।’

তিনি আরো বলেন, ‘জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউট ও হাসপাতাল পরিচালক অধ্যাপক ডা. মীর জামাল উদ্দিনসহ করোনা ইউনিটের সকলের সার্বিক সহযোগিতায় করোনা মোকাবেলা করতে সক্ষম হয়েছি। এখানে যারা চিকিৎসা নিতে এসেছে তাদের আমরা ভালোভাবে সেবা দিয়েছি।’