মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাদের ইউক্রেন পাঠানোর কথা বিবেচনা করছে তার প্রশাসন। বৃহস্পতিবার এ কথা বলেন বাইডেন। বার্তা সংস্থা এএফপির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এএফপির প্রতিবেদনে জানানো হয়, যুদ্ধবিধ্বস্ত ইউক্রেনে যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তাদের পাঠানো হবে কি না, সে বিষয়ে বাইডেনের কাছে জানতে চাওয়া হলে জবাবে তিনি বলেন, ‘আমরা এখন সেই সিদ্ধান্ত নিচ্ছি।’

তবে যুক্তরাষ্ট্রের ঠিক কোন পর্যায়ের কর্মকর্তাদের ইউক্রেনে পাঠানোর কথা বিবেচনা করা হতে পারে, তা উল্লেখ করেননি বাইডেন।

ইউক্রেনে পাঠানো হতে পারে—এমন সম্ভাব্য জ্যেষ্ঠ মার্কিন কর্মকর্তাদের মধ্যে দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন বা প্রতিরক্ষামন্ত্রী লয়েড অস্টিনের নাম থাকতে পারে।

অবশ্য এ বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র নেড প্রাইস কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। মার্কিন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাদের ইউক্রেনে পাঠানো হলে তা হবে কিয়েভের প্রতি ওয়াশিংটনের সমর্থনের একটি বড় প্রদর্শনী।

এক প্রতিবেদকের সঙ্গে সংক্ষিপ্ত আলাপে বাইডেন ইঙ্গিত দেন, তিনি নিজেও ইউক্রেনের রাজধানী কিয়েভ সফর করতে পারেন। বাইডেনের কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিল, তিনি ইউক্রেনে যেতে প্রস্তুত কি না। জবাবে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘হ্যাঁ’।

তবে শিগগির বাইডেনের কিয়েভ সফরের সম্ভাবনা নেই বলে জানিয়েছেন হোয়াইট হাউসের মুখপাত্র জেন সাকি।

এদিকে গত বুধবার ইউক্রেনে নতুন করে ৮০ কোটি ডলার মূল্যের সমরাস্ত্র পাঠানোর ঘোষণা দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। ইউক্রেনে যুক্তরাষ্ট্র যেসব অস্ত্র পাঠাবে, তার মধ্যে রয়েছে হেলিকপ্টার, বিশেষ ড্রোন, সাঁজোয়া যান, কামান ইত্যাদি।