তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যিপ এরদোগান বলেছেন, ন্যাটোতে যোগ দেওয়ার বিষয়ে সুইডেন ও ফিনল্যান্ডের ইচ্ছাকে ইতিবাচকভাবে দেখছে না তুরস্ক। এর কারণ হলো—  কুর্দিস্তান ওয়ার্কার্স পার্টির (পিকেকে) প্রতি তাদের বন্ধুত্বপূর্ণ আচরণ।

শুক্রবার টেলিভিশনে প্রচারিত এক বিবৃতিতে তিনি এ কথা বলেন। খবর মিডল ইস্ট আইয়ের।

এরদোগান বলেন, স্ক্যান্ডিনেভিয়ান দেশগুলো পিকেকে ও অন্য সন্ত্রাসী দলগুলোর জন্য নিরাপদ আশ্রয়স্থল, তথাকথিত অতিথিশালা হয়ে ওঠেছে। কিছু সন্ত্রাসী সুইডেন ও নেদারল্যান্ডসের পার্লামেন্টেও অংশগ্রহণ করে।

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট বলেন, আমরা ১৯৮০ সালে গ্রিসের ন্যাটোতে যোগ দেওয়ার সময় তাদের সমর্থন দিয়ে যে ভুল করেছি তার পুনরাবৃত্তি করতে চাই না।

এরদোগান বলেন, গ্রিস ন্যাটোর সদস্যপদ তুরস্কের বিরুদ্ধে ব্যবহার করছে।

তিনি এথেন্সের আয়োজনে ন্যাটোর চলমান সামরিক মহড়া ‘টাইগার মিট’-এর দিকে ইঙ্গিত করেছেন বলে মনে করা হচ্ছে।

চলতি বছরের শুরুতেই তুরস্কের সেনাবাহিনী জানিয়েছিল, তারা এ সামরিক মহড়ায় অংশ নেবে না। 

তবে এরদোগান দুটি স্ক্যান্ডিনেভিয়ান দেশের জন্য ন্যাটোর দরজা একেবারে বন্ধ করেননি। তাদের সুনির্দিষ্টভাবে বাতিল না করে আলোচনার পথ খোলা রেখেছেন।

রাশিয়া ইউক্রেনে আগ্রাসন চালানোর পর থেকেই সুইডেন ও ফিনল্যান্ড ন্যাটোতে যোগ দিতে চায় বলে খবর বের হয়েছে। যদিও দেশ দুটি এখনও আনুষ্ঠানিকভাবে বিষয়টি ঘোষণা দেয়নি।