ইউক্রেন ইস্যুতে কিয়েভের সঙ্গে পুনরায় শান্তি আলোচনা চালিয়ে যেতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে মস্কো। দুই দেশের মধ্যকার শান্তি আলোচনায় রাশিয়ার প্রধান আলোচক, ক্রেমলিনের সহযোগী ভদ্মাদিমির মেডিনস্কি বলেছেন, রাশিয়া আলোচনা আবার শুরু করতে ইচ্ছুক। তবে এ আলোচনা তৃতীয় কোনো দেশের সঙ্গে নয়, বরং সরাসরি কিয়েভের সঙ্গে হতে হবে। এর আগে শান্তি আলোচনা ভেস্তে যাওয়ার জন্য রাশিয়া ও ইউক্রেন একে অপরকে দায়ী করেছে। এদিকে, রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে যুক্তরাষ্ট্রের তৈরি এম৭৭৭ হাউইটজারের একটি ইউক্রেনীয় ইউনিট ধ্বংসের দাবি করা হয়েছে। তবে গণমাধ্যমের পক্ষ থেকে রাশিয়ার এই দাবি যাচাই করা সম্ভব হয়নি। খবর রয়টার্স, বিবিসি ও সিএনএনের।

ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, মারিউপোলের আজভস্তল স্টিল কারখানায় ইউক্রেনীয় যোদ্ধাদের পুঁতে রাখা মাইন অপসারণ করতে শুরু করেছে রাশিয়ার সেনারা। কয়েক সপ্তাহ ধরে অবস্থানের পর শেষ পর্যন্ত ইউক্রেনীয় সেনারা গত সপ্তাহে আত্মসমর্পণ করতে শুরু করে। প্রকাশিত একটি ভিডিও ফুটেজে দেখা গেছে, রুশ সেনারা কারখানার ভেতর হাঁটছে এবং মাইন ডিটেক্টর দিয়ে রাস্তায় পড়ে থাকা ধ্বংসাবশেষ পরীক্ষা করছে।

যুদ্ধাপরাধের দায়ে রাশিয়ার এক সেনাসদস্যকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন ইউক্রেনের একটি আদালত। তার বিরুদ্ধে ৬২ বছরের একজন বেসামরিক ইউক্রেনীয় নাগরিককে হত্যার অভিযোগ আনা হয়েছে। দণ্ডপ্রাপ্ত ওই রুশ সেনার নাম ভাদিম সিসিমারিন (২১)। তাঁর বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধের আরও অভিযোগের তদন্ত চলছে। এই রায়ের মধ্য দিয়ে প্রথমবারের মতো রাশিয়ার কোনো সেনাসদস্যকে সাজা দিলেন ইউক্রেনের আদালত। তবে এ বিষয়ে তাৎক্ষণিকভাবে রাশিয়ার পক্ষ থেকে কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি। রুশ আগ্রাসনকে কেন্দ্র করে পূর্ব ইউক্রেনের চলমান সংঘাতে দিনে ১০০ জন পর্যন্ত ইউক্রেনীয় সেনা মারা যাচ্ছে। রোববার পোলিশ প্রেসিডেন্ট আন্দ্রেজ দুদাকে সঙ্গে নিয়ে করা এক যৌথ সংবাদ সম্মেলনে এমন মন্তব্য করেছেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি। একটি অনলাইন পিটিশন সংক্রান্ত প্রশ্নের জবাবে জেলেনস্কি বলেন, এই মুহূর্তেও হয়তো দেশের পূর্বাঞ্চলীয় এলাকায় ৫০ থেকে ১০০ সেনাকে জীবন দিতে হচ্ছে। তাঁরা হত্যাকাণ্ডের শিকার হচ্ছেন।

ইউক্রেনে বর্বরতার জন্য রাশিয়াকে 'দীর্ঘমেয়াদে মূল্য দিতে হবে' বলে মন্তব্য করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। মস্কোর ওপর পশ্চিমা দেশগুলোর আরোপিত নিষেধাজ্ঞার নেতিবাচক প্রভাবের প্রতি ইঙ্গিত করে তিনি এই মন্তব্য করেন। এ সময় চীন-তাইওয়ান টানাপোড়েনের দিকে ইঙ্গিত করে বাইডেন বলেন, যদি রাশিয়া ও ইউক্রেনের মধ্যে ভবিষ্যতের কোনো সমঝোতার পরও নানা উপায়ে নিষেধাজ্ঞাগুলো অব্যাহত রাখা না হয়, তাহলে সেটি চীনকে ভুল সতর্কবার্তা পাঠাবে। এবার ইউক্রেনীয় সেনাদের প্রশিক্ষণ দিতে নিজে থেকেই আগ্রহ প্রকাশ করেছে নিউজিল্যান্ড। দেশটির প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আর্ডেন বিষয়টি গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন। জেসিন্ডা বলেন, যুক্তরাজ্যে ইউক্রেনীয় সেনাদের প্রশিক্ষণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। তাদের এল১১৯ লাইট ফিল্ড গানস প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। এর জন্য নিউজিল্যান্ডের প্রতিরক্ষা বাহিনীর ৩০ সদস্যকে যুক্তরাজ্যে পাঠানো হবে।