ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি বলেছেন, দখলদারদের বর্তমান হামলা দোনবাস অঞ্চলকে জনবসতিহীন করে তুলতে পারে।

বৃহস্পতিবার রাতে এক ভিডিও বার্তায় তিনি এ শঙ্কার কথা জানান। খবর সিএনএনের।

জেলেনস্কি বলেন, তারা পুপসানা, বাখমুত, লিমান, লিসিচানস্ক, সেভেরদোনেৎস্ককে ভোলনোভাখা ও মারিওপুলের মতো পুড়িয়ে ছাই বানিয়ে ফেলতে চায়।

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট বলেন, ইউক্রেনের পূর্ব দোনবাসে রাশিয়ার এ তীব্র হামলা ‘গণহত্যার একটি সুস্পষ্ট নীতি’ প্রতিফলিত করে। 

তিনি আরও বলেন, সব মিলিয়ে, আমাদের নাগরিকদের তাড়িয়ে দেওয়া ও হত্যা করার মতো গণহত্যার একটি সুস্পষ্ট নীতি অনুসরণ করছে রাশিয়া।

জেলেনস্কি বলেন, রাশিয়ার ওপর চাপ তৈরি করার অর্থ হলো— ‘আক্ষরিক অর্থে জীবন রক্ষা করা’। কিন্তু রাশিয়াকে ‘তুষ্ট’ করার জন্য বিলম্ব, বিরোধ বা প্রস্তাব মস্কোকে ‘নতুন ইউক্রেনীয় হত্যা’ ও এ মহাদেশে অন্যদের জন্য হুমকি সৃষ্টির দিকে নিয়ে যায়।

সাম্প্রতিক সময়ে দোনবাস অঞ্চলের কর্তৃপক্ষ জানায়, সেভেরোদোনেৎস্ক ও লিসিচানস্ক দখলে নেওয়ার জন্য রুশ সেনারা ৪০টির বেশি অবস্থানে হামলা চালিয়েছে।

এ ছাড়া ওই অঞ্চলে রাশিয়ার হামলা তীব্র পর্যায়ে পৌঁছেছে বলে জানিয়েছেন ইউক্রেনের উপপ্রতিরক্ষামন্ত্রী হান্না মিলার।

২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে হামলা শুরুর কিছুদিন পর নিজেদের লক্ষ্য পরিবর্তন করে মস্কো। ইউক্রেনের পূর্ব ও দক্ষিণাঞ্চলকে গুরুত্ব দেওয়ার কথা জানানোর পর থেকে দোনবাস অঞ্চলে হামলা জোরদার করে রুশ সেনারা। এর পর গুরুত্বপূর্ণ বন্দরনগরী মারিওপোলের দখলে নেয় রাশিয়া। এখন তারা দোনবাস অঞ্চলে ব্যাপক হামলা চালাচ্ছে।