ইউক্রেনের প্রধানমন্ত্রী ড্যানিস শিমহাল বলেছেন, রাশিয়ার আক্রমণে তার দেশের ২৫ হাজার কিলোমিটারের বেশি দীর্ঘ সড়কপথ, কয়েকশ সেতু এবং ১২টি বিমানবন্দর ধ্বংস হয়েছে। 

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির সঙ্গে আলাপকালে শিমহাল বলেন, শতাধিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, পাঁচ শতাধিক স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠান এবং ২০০ কারখানা ধ্বংস বা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। শনিবার এই খবর দিয়েছে বিবিসি অনলাইন। 

তিনি বলেন, দেশের অর্থনীতির প্রায় ৩৫ শতাংশ বর্তমানে অকেজো হয়ে গেছে। দেশের তিন লাখ বর্গ কিলোমিটার ভূমি রাশিয়ান বোমায় গর্ত বা দূষিত হয়েছে। ইউক্রেনীয় প্রধানমন্ত্রীর অনুমান দেশের জিডিপির ৩০ থেকে ৫০ ভাগ হারিয়ে গেছে। মাসিক বাজেট ঘাটতি ৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। 

বিভিন্ন হিসাব অনুযায়ী, রাশিয়ান হামলায় ইউক্রেনের অবকাঠামো এবং অর্থনীতির সরাসরি ক্ষতি প্রায় ৬০০ বিলিয়ন ডলার। 

শিমহাল বলেন, ইউক্রেন সরকার যেখানে সম্ভব পুনর্নির্মাণের জন্য তাৎক্ষণিকভাবে ৫০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার বরাদ্দ দিয়েছে। পরবর্তী ধাপে গুরুত্বপূর্ণ যেমন বিদ্যুৎ এবং পানি সরবরাহের অবকাঠামো পুর্ননির্মাণ করা হবে। এ ছাড়া সেতু এবং সড়ক নির্মাণ করা হবে। 

তিনি বলেন, তৃতীয় ধাপে হবে আমাদের দেশের ‘গুরুত্বপূর্ণ পুনর্গঠন’। আমরা শুধু ইট এবং পাথরের পুনর্স্থাপন করতে চাই না। আমরা নতুন একটি রাষ্ট্র গড়তে চাই। তার জন্য দরকার ইউক্রেনীয় তহবিল, আন্তর্জাতিক সহায়তা এবং রাশিয়ান অর্থ। 

ইউক্রেনের প্রধানমন্ত্রী বলেন, আক্রমণকারী যে ধ্বংস সাধন করেছে তার জন্য তাকে অবশ্যই মূল্য দিতে হবে সেই ব্যাপারে আমরা কনভিন্সড। এটা পরিষ্কার হওয়া উচিত যে, বাজেয়াপ্ত করা রাশিয়ান সম্পদ ইউক্রেনে স্থানান্তর করে তা ব্যয় করে আমাদের রাষ্ট্রের পুনর্গঠন হবে।