ইউক্রেনের লভিভে ইয়াভোরিভ সামরিক ঘাঁটিতে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছে রাশিয়া। এতে অন্তত চারজন আহত হয়েছেন।

লভিভের গভর্নর ম্যাক্সিম কোজিটস্কি এক ভিডিও বার্তায় এ তথ্য জানান। খবর আলজাজিরার।

কোজিটস্কি জানান, কৃষ্ণসাগর থেকে ছয়টি ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়া হয়েছে। এর মধ্যে চারটি ঘাঁটিতে আঘাত করেছে। বাকি দু্টি ঠেকানো ও ধ্বংস করা হয়েছে লক্ষ্যে আঘাত হানার আগেই।

ইউক্রেনের কর্মকর্তাদের তথ্য অনুযায়ী, এর আগে মার্চে একটি সামরিক প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে হামলার ঘটনা ঘটেছিল। সে সময় ৩৫ জন নিহত ও ১৩০ জন আহত হয়েছিলেন।

এদিকে ইউক্রেনের কর্মকর্তারা বলছেন, হামলার শিকার হয়েছে দেশটির আরও সামরিক অবকাঠামো।

ইউক্রেনের উত্তরের অঞ্চল জাইতোমিরের গভর্নর ভিটালি বুনেচকো বলেন, সামরিক লক্ষ্যবস্তুতে হওয়া হামলায় অন্তত এক সেনা নিহত হয়েছেন। জাইতোমির শহরের কাছে একটি সামরিক অবকাঠামো লক্ষ্য করে কমপক্ষে ৩০টি ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়া হয়। এর মধ্যে ১০টির কাছাকাছি ধ্বংস করা গেছে।

এদিকে চেরনিহিভ অঞ্চলে ইউক্রেনের ইনফান্ট্রি ফোর্সের প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনার খবর জানিয়েছেন সেখানকার গভর্নর ব্যাচেস্লাভ চাউস। কীভাবে এ আগুন লেগেছে তা তিনি জানাননি। বলেছেন, এতে ‘অবকাঠামোর ক্ষতি’ হয়েছে। এতে কেউ আহত হননি।

২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে ‘বিশেষ সামরিক অভিযান’ শুরু করে রাশিয়া। যদিও পশ্চিমা দেশগুলো একে আগ্রাসন হিসেবে দেখে। যুদ্ধের ১২২তম দিনে এসে লুহানস্ক অঞ্চল প্রায় নিয়ন্ত্রণে নেওয়ার পথে রয়েছে মস্কো। এর আগে ইউক্রেনের গুরুত্বপূর্ণ বেশ কিছু শহরের নিয়ন্ত্রণ নিতে সক্ষম হয়েছে রুশ সেনারা।