বিতর্ক শুধু যুক্তি নয়, এটা মানুষের ভেতরকার বিবেককে শুদ্ধ করে পরিপূর্ণ মানুষ হতে সহায়তা করে। বিতর্ক সত্যকে প্রতিষ্ঠিত করে, যারা সাহসী তাইরাই বিতর্ক করে সত্যকে অনুসন্ধান করে। 

আজ শুক্রবার ফরিদপুরে কবি জসীমউদ্দিন হলে দ্বাদশ জাতীয় বিতর্ক উৎসবে এসব কথা বলেন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক অতুল সরকার ।

ফরিদপুর ডিবেট ফোরামের আয়োজনে দুই দিনের এই বিতর্ক উৎসবে অতিথি হিসাবে আরও ছিলেন, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শামিম হক, সাধারণ সম্পাদক শাহ মো. ইসতিয়াক আরিফ, ফরিদপুর সদর উপজেলার চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক মোল্লা, সাহিত্য ও সংস্কৃতি উন্নয়ন সংস্থার সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল ফয়েজ, নারী নেত্রী আসমা আক্তার মুক্তা, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব সিরাজ-ই-কবির খোকন প্রমুখ। 

উৎসবের শুরুতে স্বাধীনতা যুদ্ধের সকল শহীদের প্রতি ১ মিনিট দাঁড়িয়ে শ্রদ্ধা জানানো হয়। পরে আলোচনাসভা ও র‍্যালি বের করা হয়। 

ছবি- সমকাল। 

ফরিদপুর ডিবেট ফোরামের সভাপতি অমিত ঘোষের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি আরও বলেন, আমাদের তরুণ প্রজন্মকে ১৯৫২ ও ৭১ সালের চেতনা হৃদয়ে ধারণ করাতে না পারলে একটা অপশক্তি, অপসংস্কৃতি আমাদের সমাজকে গ্রাস করে ফেলবে।

জেলা প্রশাসক আরও বলেন, পৃথিবীতে যেদিন থেকে সভ্যতা শুরু হয়েছে, সেদিন থেকেই বিতর্ক-চর্চার সূচনা। কারণ, বিতর্ক ছাড়া সত্যের অনুসন্ধান করা যায় না। আধুনিক সভ্যতার যে আবিষ্কার তা যুক্তি-তর্কের মাধ্যমেই সৃষ্টি হয়েছে।

অমিত ঘোষ জানান, দুই দিনের এই বিতর্ক উৎসবে দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে সাড়ে ছয়শ (স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় তিন গ্রুপের) বির্তাকিক অংশ নিয়েছে। 

তিনি জানান, শনিবার বিকেলে সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানি বিষয়ক উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী বীর বিক্রম, এফবিসিসিআই-এর সাবেক সভাপতি এ.কে আজাদসহ বিশিষ্ট অতিথিরা উৎসবের বিজয়ীদের হাতে সনদ তুলে দেবেন।